ট্রাস্ট পরিবহনের বাস আটক, মামলা হয়নি এখনো

ঢাবি প্রতিনিধি :
ট্রাস্ট পরিবহনের বাসে গত বৃহস্পতিবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিন্যান্স বিভাগের এক ছাত্রীকে হয়রানির প্রতিবাদে রোববার চারটি বাস আটক করে শাহবাগ থানায় দেয় তার সহপাঠীরা। তবে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে নির্দিষ্ট করে কোনো লিখিত অভিযোগ না আসায় এখনো কোনো মামলা হয়নি বলে মানবকণ্ঠকে নিশ্চিত করেছেন শাহবাগ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবুল হাসান।
জানা গেছে, রোববার দুপুরে শাহবাগ থেকে ট্রাস্ট পরিবহনের বাসগুলো আটক করে ক্যাম্পাসের মলচত্বরে রাখা হয়। পরে ওই বাসের মালিকদের একজন আসার পর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক এ কে এম গোলাম রাব্বানী বাসগুলো শাহবাগ থানায় দেন।
হয়রানির শিকার ছাত্রীর বন্ধু রশিদ মাহমুদ সাংবাদিকদের বলেন, বৃহস্পতিবার ফার্মগেট থেকে শাহবাগে আসার পথে আমরা ট্রাস্ট পরিবহনের একটি বাসে উঠি। বাসে ওঠার পর শাহাবুদ্দিন নামে এক হেলপার ভাড়া তুলতে গিয়ে আমার বান্ধবীর গায়ে হাত দেয়। এতে হেলপারকে ধমক দেই। ওই হেলপারও পাল্টা জবাব দিলে কথা কাটাকাটি হয়। পরে হেলপারের ছবি তুলে বাস থেকে নেমে যাই আমরা। রোববার আমরা কয়েক বন্ধু শাহবাগ গিয়ে চারটি বাস ক্যাম্পাসে নিয়ে আসি। পরে প্রক্টর স্যার এসে বাসগুলো থানায় দেন।
মামলার বিষয়ে জানতে চাইলে শাহবাগ থানার ওসি আবুল হাসান মানবকণ্ঠকে বলেন, একটি বাস থানায় আছে। তবে কেউ নির্দিষ্ট করে লিখিত অভিযোগ না দেয়ায় কোনো মামলা হয়নি।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে ঢাবি প্রক্টর অধ্যাপক গোলাম রাব্বানী মানবকণ্ঠকে বলেন, এখন পর্যন্ত কেউ লিখিত অভিযোগ দেয়নি। বাসটিও আমরা চিহ্নিত করতে পারছি না। চারটি বাসের মধ্যে তিনটি বাস ছেড়ে দেয়া হয়েছে। তবে একটিকে এখনো থানায় রাখা হয়েছে।