টেকনাফ ও হবিগঞ্জে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৫

সড়ক দুর্ঘটনা

কক্সবাজারের টেকনাফ-শাহপরীর দ্বীপ সড়কের সাবরাং এলাকায় এবং হবিগঞ্জ সদর উপজেলায় পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় পাঁচজন নিহত হয়েছে। রোববার দিবাগত রাতে কক্সবাজারের টেকনাফে এবং সোমবার সকালে হবিগঞ্জে পৃথক দু’টি দুর্ঘটনা ঘটে।

রোববার রাত দুইটার দিকে টেকনাফ-শাহপরীর দ্বীপ সড়কের সাবরাং ‘নুর আহমদ চেয়ারম্যানের টেক (বাঁক) নামক এলাকায় গাছের সঙ্গে প্রাইভেট কারের ধাক্কায় তিনজন নিহত হয়েছেন। এসময় আহত হয়েছেন আরো দুইজন। নিহতরা হলেন- টেকনাফ পৌরসভা মাধ্যম জালিয়াপড়ার নুরুল আলমের ছেলে মাহবুবুর রহমান ওরফে মাবু (২৭), মৌলভীপাড়ার অলি আহমদের চালক মো. হেলাল উদ্দিন (২৫), সাবরাং আছারবনিয়া এলাকার আব্দুল জলিলের ছেলে মো. ইসমাইল (২৮)। আহত দুজনের মধ্যে একজন হলেন নেওয়াজ উদ্দিন (২৫) ও অপরজন হলেন সাবরাং পানছড়িপাড়ার লাল মোহাম্মদ ছেলে মো. রাসেল (২৫)।

টেকনাফ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সর আবাসিক চিকিৎসক এনামুল হক বলেন, হাসপাতালে আনার আগেই তিনজনের মৃত্যু হয়েছে। এ ঘটনায় আহত নেওয়াজ উদ্দিন ও মো. রাসেলকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে রাতে উন্নত চিকিৎসার জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

টেকনাফ মডেল থানার ওসি মাইন উদ্দিন খান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

অপর দিকে সোমবার সকালে হবিগঞ্জ সদর উপজেলার সুরাবই এলাকায় ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে বিপরীত দিক থেকে আসা একটি ট্রাকের সঙ্গে প্রাইভেটকারের মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে প্রাইভেটকারটি দুমড়েমুচড়ে যায়। এতে ঘটনাস্থলেই প্রাণ হারান দুই জন। নিহতরা হলেন, আমেরিকান টোব্যাকো কোম্পানির কর্মকর্তা মাসহুদ আলিম (২৬) ও প্রাইভেটকারের চালক সিলেট কদমতলী এলাকার মাসুদ আহমদ (২৮)।

শায়েস্তাগঞ্জ হাইওয়ে থানার ওসি জসিম উদ্দিন খন্দকার বলেন, আমেরিকান টোব্যাকো কোম্পানির সিলেট কার্যালয়ে কর্মকর্তা মাশহুদ আলিম একটি প্রাইভেটকারে করে ঢাকা থেকে সিলেটে যাচ্ছিলেন। গাড়িটি হবিগঞ্জ সদর উপজেলার সুরাবই এলাকায় ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের পৌঁছালে বিপরীত দিক থেকে আসা একটি ট্রাকের সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে প্রাইভেটকারটি দুমড়েমুচড়ে যায়। এতে ঘটনাস্থলেই প্রাণ হারান কারের চালক মাসুদ আহমদ। গুরুতর আহত মাশহুদ আলিমকে হবিগঞ্জ আধুনিক জেলা সদর হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার সময় পথে মধ্যে তিনিও মারা যান। ট্রাকটি আটক করা হয়েছে। এ বিষয়ে মামলার প্রস্তুতি চলছে।

মানবকণ্ঠ/এসএস