টিকটিকির উপদ্রব থেকে বাঁচতে

ঘরের আনাচে-কানাচে টিকিটিকির উপস্থিতি কমবেশি সব বাড়িতেই দেখতে পাওয়া যায়। দেখতে নিরীহ হলেও আসলে এই প্রাণী খুবই বিষাক্ত। বিশেষ করে টিকটিকির ত্বক ও বর্জ্য শরীরের জন্য খুবই ক্ষতিকারক। যখন-তখন খাবারের মধ্যে বা গায়ের ওপর পড়ে নানা সংক্রমণ ও ত্বকের প্রদাহ তৈরি করতে পারে এটি। তাই টিকটিকিমুক্ত বাড়ি চান সবাই। কিন্তু সহজে এদের বাড়ি থেকে সরানো যায় না।

কিছু দামি রাসায়নিকে অল্প কিছুক্ষণের জন্য এই প্রাণী ঘরছাড়া হলেও আবার তা ফিরে আসতেও সময় নেয় না। আবার সেসব রাসায়নিক স্প্রে করা শরীরের জন্যও ভালো নয়। বাড়িতে শিশুরা থাকলে তো এসব রাসায়নিক নিয়ে আরো সতর্কতা অবলম্বন করা উচিত। তাই রাসায়নিক স্প্রে বাদ দিয়ে যদি ঘরোয়া কিছু উপায়ে দীর্ঘদিন এই সমস্যা থেকে মুক্ত থাকা যায় তাহলে ক্ষতি কি? জানেন কি সেসব ঘরোয়া উপায় কি কি?

  •  টিকটিকির উৎপাত যেখানে বেশি, সেখানে ছড়িয়ে রাখুন ডিমের খোসা। এই গন্ধে অল্প সময়েই টিকটিকি মুক্ত হবে জায়গাটি।
  •  জানালার কোণে বা ভেন্টিলেটরে রেখে দিন রসুনের কোয়া। রসুনের কোয়ায় গন্ধে বাড়ি টিকটিকি মুক্ত হবে সহজেই।
  •  পেঁয়াজের মধ্যে থাকা সালফারের গন্ধ টিকটিকি সহ্য করতে পারে না। তাই টিকটিকির চলাচলের পথে বা জানালার কোণে কয়েক টুকরো পেঁয়াজ কিছু সময়ের জন্য রেখে দিলে সহজেই জব্দ হবে টিকটিকি।
  •  গোলমরিচ বা শুকনো লঙ্কার গুঁড়ার গন্ধ টিককিটির মস্তিষ্ককে অবশ করে দেয়। শরীরের অস্বস্তি এড়াতে এই গন্ধ থেকে দূরে থাকে টিকটিকি। তাই গোলমরিচের গুঁড়া বা লঙ্কার গুঁড়া জলে মিশিয়ে টিকটিকি উপদ্রুত এলাকায় স্প্রে করলে ঘরে টিকটিকি আসে না। তবে বাড়িতে শিশু থাকলে এই উপায় অবলম্বনে বাড়তি সতর্কতা নিন। কোনোভাবেই এই স্প্রে যেন তাদের নাগালের মধ্যে না যায়।
  •  তামাকের কড়া গন্ধ টিকটিকি সহ্য করতে পারে না। কিছুটা কফি পাউডারের সঙ্গে তামাকের গুঁড়া মিশিয়ে ছোট ছোট গুলি আকারের বল তৈরি করে নিন। তার পর সেগুলো টিকটিকির চলাচলের পথে রেখে দিন। এতে সহজেই সরবে টিকটিকি।

মানবকণ্ঠ/এফএইচ

Leave a Reply

Your email address will not be published.