জমজমাট আয়োজনে অনুষ্ঠিত বাংলাদেশি ইউটিউব গালা

অনেক আলোকসজ্জা, বিনোদন ও রমরমা পরিবেশে কুইন্স প্যালেসে গত ১৩ জুলাই অনুষ্ঠিত হলো ষ্টার এন্টারটেইনমেন্টের বাংলাদেশি ইউটিউব গালা (বিওয়াইজি)। অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করে বিভিন্ন নর্থ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ইউটিউব চ্যানেলধারীরা। তাহসিনেশন, শেখ আকবর, শা ভলিম্পস, আবরার ভাই, হাবিবি এক্সপ্রেস, আইটাবলা০০৭, স্টিক বলিস, বাংলাদেশি সিনমা ফানডা এবং কানাডা থেকে আসা নন্দন। আরো ছিলেন সায়েদা যতি, তানজিলা নেওয়াজ, ফারজানা উইকি ও ঝুমকি। অনুষ্ঠানটি প্রথম আমেরিকায় বাংলাদেশি বসবাসরত দ্বিতীয় প্রজন্মের জন্য আয়োজন করেন সৈয়দ রেহান ইমন।
তিনি জানান, আমাদের এখানে বাংলাদেশিদের থেকে কোনো লাইভ এন্টারটেইনমেন্ট মানেই কোনো মেলা অথবা কনসার্ট। যেখানে টিভিতে দেখা বাংলাদেশ থেকে আনা অথবা লোকাল আর্টিস্টরাই বিনোদন দেয়। সে অনুষ্ঠানে শুধু মাত্র আমাদের পরিবারের সিনিয়ররাই উপভোগ করে। তাদের ছেলেমেয়েরা টিভিতে দেখা অথবা লোকাল আর্টিস্টদের প্রতি কোনো আগ্রহ নাই। আজকাল প্রতি ছেলে-মেয়েদের হাতের ফোন অথবা স্মার্ট ডিভাইস থেকে ফেসবুক, ইউটিউব, ইন্সট্রাগ্রাম ও টুইটারের মতো অনেক সোশ্যাল প্লাটফর্মে পাবলিক ফিগারদের থেকে বিনোদন নেয়। এই পাবলিক ফিগারদের মাঝেই আছে গায়ক, রাপার, কমেডিয়ান, ইন্সট্র–মেন্টাল আর্টিস্ট, ড্যান্সার এবং ব্লগার। আমাদের সেকেন্ড জেনারেশনের ইন্টারেস্ট হলো স্মার্ট ডিভাইসে থাকা আর্টিস্টরা। তাই তাদের জন্য আয়োজন করা এই অনুষ্ঠান। যেখানে তারা তাদের পছন্দের আর্টিস্টদের লাইভ দেখবে। আমি নিজেই এককভাবে এই অনুষ্ঠানটির আয়োজন করি। কমিউনিটি কিংবা কোনো ব্যবসায়ীরা আমাকে সহযোগিতা করেনি। অনেকে সহযোগিতার কথা দিয়ে পরে পিছিয়ে গেছে এবং অনেকে জানেনই না ইউটিউব কি? এছাড়া অনুষ্ঠানটি এখন অনলাইনে বহু আলোচিত এবং সাফল্য অর্জন করে।
সৈয়দ রেহান ইমন বলেন, ‘তাহসিনের সঙ্গে এক সাধারণ টেলিফোনের আড্ডা থেকেই এই অনুষ্ঠানের পরিকল্পনা হয়। তাহসিনেশনও প্রতিটি আর্টিস্টের শ্রম ও মেধা আমাদের সাফল্য এনেছে। আমাদের এই অনুষ্ঠানটি সফল হবে এতে আমার কোনো সন্দেহ ছিল না। যুগ বদলাচ্ছে আর এসব ফেমাস আর্টিস্টদের দেখার জন্য অনেকেরই অনেক দিনের আশা ছিল। আমাদের এই শোতে শুধু বাংলাদেশি নয়, পাকিস্তানিরাও বাংলা গানের সঙ্গে নেচেছে। আমাদের ৩০ জন আর্টিস্ট ২১টি সেগমেন্ট স্টেজে পারফর্ম করে। শোর অংশ এখন সবখানে ছড়িয়ে গেছে বিভিন্ন দর্শকের লাইভ ও ইউটিউব আপলোড থেকে। শো চলাকালীন সময় শুক্রবার রাত ১২.১৫ মিনিটে দর্শকের আবেদনে আরো একটি সেগমেন্ট চালিয়ে যেতে হয়।দর্শকের বয়স ১৩ থেকে ৬০ পর্যন্ত। অনেকেই অনলাইনে উল্লেখ করেছে এই শো ছিল তাদের দেখা সেরা শো যা বাংলাদেশিদের থেকে কখনোই আগে দেখা হয়নি। আমাদের সঙ্গে এই শোতে কাজ করার জন্য এখন অনেক দেশ থেকে বাংলাদেশি ইউটিউবাররা আগ্রহ জানাচ্ছে। অনেকেই শীঘ্রই আরেকটি শোর জন্য আবেদন করছে। আগামী অনুষ্ঠানের দিন তারিখ এখনো ঠিক করা হয়নি। আশা করছি, আগামী অনুষ্ঠানে কমিউনিটির সহযোগিতা পাবো নতুন প্রজন্মদের জন্য। ওনারাই পারে তাদের এগিয়ে যাবার উৎসাহ জোগাতে। অনুষ্ঠানটির কিছু অংশ অনলাইনে ১০০ কের বেশি ভিউ হয়েছে এবং প্রতি সপ্তাহে দুটি করে ভিডিও ইউটিউবের বিওয়াইজিইভেন্ট অফিসিয়াল (BYGEVENT Official) চ্যানেলে লোড হবে এবং সহযোগিতাকারীদের নাম উল্লেখ করা হবে।
আশা করি সবাই উপভোগ করবেন। কড়া সিকিউরিটি নজরধারীদের দিয়ে নিয়ন্ত্রণে ছিল কুইন্স প্যালেস। অনুষ্ঠানে আসা কিশোর-কিশোরীদের সঙ্গে অনেক অভিভাবক ও আরো অনেক দর্শক বিভিন্ন স্ট্রেট থেকে উপভোগ করতে আসেন। – ফেসটিউব ডেস্ক