গৃহবধূকে গাছে বেঁধে নির্যাতন, আটক ৮

গরু চুরির অভিযোগে কাজলী খাতুন ওরফে হেয়া (৪২) নামে এক গৃহবধূকে গাছের সঙ্গে বেঁধে নির্যাতন ও বাড়িঘর ভাঙচুরের অভিযোগ পাওয়া গেছে প্রতিবেশীর বিরুদ্ধে। বুধবার রাতে চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা উপজেলার চিৎলা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

সোমবার দুপুরে ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে একই গ্রামের আহাদ আলী শেখের ছেলে আইয়ুব আলী (৫২) ও তার স্ত্রী মাহিরন নেছা (৪৫), ছেলে রাজু ওরফে উকিল (১৮), আবুলের ছেলে বাচ্চু (৩৫), সেকেন্দার আলীর ছেলে হাসান (২০), নয়েশ আলীর ছেলে সাহেব আলী (২০), বাবুলের ছেলে সেতু (২০) এবং কাজিরুলের ছেলে ফয়সালকে (২০) আটক করেছে পুলিশ।

দামুড়হুদা থানার ওসি আবু জিহাদ মো. ফকরুল আলম খান জানান, গত বুধবার দিবাগত রাতে উপজেলার চিৎলা গ্রামের সিরাজুল ইসলামের গোয়াল ঘর থেকে দুটি হালের বলদ চুরি হয়ে যায়। বৃহস্পতিবার সকালে প্রতিবেশী তরল আলী গরু চুরি করেছে বলে অভিযোগ তুলে সিরাজুলসহ তার লোকজন তার বাড়িতে হামলা চালিয়ে তাকে না পেয়ে বাড়িঘর ভাঙচুর ও লুটপাট করে। তরল আলীর স্ত্রী কাজলি খাতুন স্থানীয় জুড়ানপুর বাজার থেকে বাড়ি ফেরার পথে সিরাজুল ইসলামের লোকজন তাকে ধরে বাড়ির পাশের বেল গাছের সঙ্গে বেঁধে ঘণ্টাব্যাপি নির্যাতন করে। পরে এলাকার লোকজন কাজলিকে উদ্ধার করে স্থানীয় ক্লিনিকে ভর্তি করে।

এ খবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে সোমবার সকালে চুয়াডাঙ্গা পুলিশ সুপার নিজাম উদ্দীন ও সহকারী পুলিশ সুপার কলিমুল্লাহ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। এরপর পুলিশের সহযোগীতায় কাজলি খাতুন বাদী হয়ে ৯ জনের নাম উল্লেখ করে থানায় মামলা দায়ের করলে পুলিশ তাদেরকে আটক করে। বিকেলে তাদেরকে চুয়াডাঙ্গা আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে বলে তিনি জানান।

মানবকণ্ঠ/এসইউ/এফএইচ