চীন ছাড়া রোহিঙ্গা সংকটের সমাধান সম্ভব নয়

কূটনৈতিক প্রতিবেদক :
রাখাইনে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর বর্বর গণহত্যা ও নির্যাতনে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া ১১ লাখ রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন নিয়ে সৃষ্ট জটিলতা নিরসনে চীন অগ্রণী ভূমিকা পালন করতে পারে। কেননা, দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া অঞ্চলে চীনের প্রভাব অনেক। তাই চীন ছাড়া এই অঞ্চলের অনেক সমস্যার সমাধানও সম্ভব নয়। গতকাল রোববার বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ইন্টারন্যাশনাল অ্যান্ড স্ট্র্যাটিজিক স্টাডিজ (বিস) আয়োজিত এক সেমিনারে বক্তারা এসব কথা বলেন।
আন্তর্জাতিক শান্তি প্রতিষ্ঠায় বাংলাদেশ ও জাপানের অভিজ্ঞতা শীর্ষক এই সেমিনারে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বিষয়ক সংসদীয় স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যান ডা. দীপু মনি। এতে বিশেষ অতিথি ছিলেন ঢাকায় নিযুক্ত জাপানের রাষ্ট্রদূত হিরোয়েসু ইজুমি। দুই দিনব্যাপী এ সেমিনারে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন হিরোশিমা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. মারি কাতায়ানাগি, বিস চেয়ারম্যান মুন্সী ফয়েজ আহমদ ও মহাপরিচালক জেনারেল এ কে এম আবদুর রহমান প্রমুখ। এই সেমিনারটি আজ শেষ হবে।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে ডা. দীপু মনি বলেন, বিশ্বশান্তি প্রতিষ্ঠায় বাংলাদেশ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে আসছে। জাতিসংঘের বিভিন্ন অধিবেশনে বাংলাদেশের পক্ষ থেকে শান্তি প্রতিষ্ঠার বিষয়ে বক্তব্য দেয়া হয়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও বিশ্বশান্তির বিষয়ে জাতিসংঘে কয়েকবার বক্তব্য দিয়েছেন। একইসঙ্গে জাতিসংঘ শান্তি মিশনে বাংলাদেশের সেনারা সক্রিয় অংশগ্রহণ করছেন। দীপু মনি আরো বলেন, বাংলাদেশের অবস্থান সবসময় শান্তির পক্ষেই। তিনি জানান, খুব শিগগিরই ঢাকায় পিস বিল্ডিং সেন্টারের উদ্বোধন হবে। শান্তি প্রতিষ্ঠার জন্য বাংলাদেশ-জাপান একযোগে কাজ করে যাবে।
ঢাকায় নিযুক্ত জাপানের রাষ্ট্রদূত হিরোয়েসু ইজুমি সেমিনারে বলেন, বাংলাদেশ প্রতিবেশী দেশ থেকে নতুন করে আসা ৭ লাখ নাগরিককে আশ্রয় দিয়েছে। আমরা এই সমস্যার শান্তিপূর্ণ সমাধান আশা করি। এই সংকটে জাপান বাংলাদেশকে সহায়তা করে চলেছে। অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন জাপানের হিরোশিমা পিস বিল্ডার্স সেন্টারের অধ্যাপক ড. হিদেকা শিনোদা। এই সংকট সমাধানে চীন অগ্রণী ভূমিকা পালন করতে পারে বলে অভিমত প্রকাশ করেন তিনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published.