গ্রিসে দোয়েল একাডেমির নবগঠিত কমিটির পরিচিতি সভা

সুদূর প্রবাসে গ্রিসের মাটিতে বাংলাদেশের ভাষা ও সংস্কৃতির ধারক, বাহক এবং প্রচারক বাংলাদেশ দোয়েল সাংস্কৃতিক সংগঠনের উদ্যোগে দোয়েলের সহযোগী প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ দোয়েল একাডেমির নবগঠিত পরিচালনা পরিষদের পরিচিতি অনুষ্ঠান আয়োজিত হয়। দোয়েল সাংস্কৃতিক সংগঠনের সভাপতি আব্দুর রাজ্জাক টিটুর সভাপতিত্বে এবং সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক বিশিষ্ট সংগীত শিল্পী আব্দুর রহিম ও দোয়েল একাডেমির শিক্ষিকা মেভিজ পরমার পরিচালনায় মনোজ্ঞ অনুষ্ঠানটিতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ কমিউনিটি ইন গ্রিসের সম্মানিত সভাপতি হাজী আব্দুল কুদ্দুস।

এ ছাড়া বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন গ্রিসের বুকে প্রথম বাংলা স্কুল এথেন্স বাংলা একাডেমির প্রতিষ্ঠাতা বিশিষ্ট ব্যবসায়ী আরিফুর রহমান আরিফ (সিরাজ)। আরো উপস্থিত ছিলেন বিশিষ্ট মুক্তিযোদ্ধা সফিউল্লাহসহ স্থানীয় রাজনৈতিক সামাজিক আঞ্চলিক এবং ব্যবসায়ী নেতারা। দোয়েল একাডেমির নেতৃবৃন্দ এবং ছাত্রছাত্রীরাসহ গ্রিসে বসবাসরত বাঙালি পরিবারের স্বতঃস্ফূর্ত উপস্থিতিতে অনুষ্ঠানটিকে প্রাণবন্দ করে তোলে।

দোয়েল সাংস্কৃতিক সংগঠনের সভাপতি আব্দুর রাজ্জাক টিটু উপস্থিত অতিথিদের স্বাগত জানিয়ে বক্তব্য রাখেন এবং বাংলাদেশ দোয়েল একাডেমির নবগঠিত পরিচালনা পরিষদের সদস্যদের পরিচয় করিয়ে দেন। দোয়েল একাডেমির পরিচালনা পরিষদের চেয়ারম্যান হিসেবে বিশিষ্ট ব্যবসায়ী আনোয়ার হোসেন দেওয়ানকে পরিচয় করিয়ে দেয়া হয়। পাশাপাশি সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান কামাল রহমান এবং মহাসচিব ইকবাল হোসেনের নাম ঘোষণা হলে উপস্থিত সুধীবৃন্দ করতালির মাধ্যমে স্বাগত জানান।

সহ-সভাপতি পদে সোহরাব হোসেন ইসমাইল, হাজী মোক্তার হোসেন, কুদ্দুস শিকদার, আলগীর হোসেন, জাকির হোসেন, লোকমান মাতাব্বর, হাফেজ আহমেদ, শহীদ আওলাদার, ফারুক হোসেনের নাম ঘোষণা করা হয়। সহকারী সচিব হিসেব ইসমাইল হোসেন রনি, মো. সামিম হোসেন, সুমন পাটোয়ারী ও রাসেল মিয়ার নাম ঘোষণা করা হয়। একাডেমির কোষাধ্যক্ষ হিসেবে দেলোয়ার হোসেন খান, সহকোষাধ্যক্ষ মাঈনুল হোসেনের নাম ঘোষণা করা হয়। ম্যানেজিং কমিটির মহিলা বিষেয়ক সচিবদের নাম যথাক্রমে বিথি খলিফা, নুরজাহান বেগম শিউলি, সরকার হাসিনা আক্তার, নিতু আক্তার, মিলি আলম, রেশমী সানি, মৌসুমি মুকুল, মাহবুবা খান, রিনা বেগম, সাবিনা আলী এবং সোনিয়া খানের নাম ঘোষণা দেয়া হয়।

এথেন্স বাংলা একাডেমির প্রতিষ্ঠাতা এবং দোয়েল একাডেমির প্রধান উপদেষ্টা হিসেবে মনোনীত আরিফুর রহমান আরিফ (সিরাজ) তার বক্তব্যে নবগঠিত পরিচালনা পরিষদকে অভিনন্দন জানিয়ে প্রবাসী বাংলাদেশের ভাষা ও সংস্কৃতি চর্চার প্রয়োজনীয়তা তুলে ধরেন। তিনি দীর্ঘ ২০ বছর ধরে প্রবাসী পরিবারগুলোর জন্য যে নিরলসভাবে কাজ করেছেন তা তুলে ধরেন এবং বলেন যত দিন এদেশের মাটিতে বেঁচে থাকবো দেশের ভাষা ও সংস্কৃতির জন্য নিরলসভাবে কাজ করে যাব।

তিনি গ্রিসে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মো. জসীম উদ্দিনের প্রবাসীদের প্রতি অসীম ভালোবাসা এবং প্রবাসীদের উন্নয়নের প্রতি নিরলস শ্রমের কথা উল্লেখ করেন বলেন, রাষ্ট্রদূত প্রবাসীদের স্বার্থে নিরলস শ্রমের সফলতা গ্রিস প্রবাসীদের কাছে চির স্বরণীয় হয়ে থাকবে। তিনি আরো বলেন, রাষ্ট্রদূতের উত্সাহ এবং উদ্দীপনায় দোয়েল সাংস্কৃতি সংগঠন এবং দোয়েল একাডেমি এগিয়ে চলছে। তিনি আরো বলেন, শিগগিরই গ্রিসের শিক্ষামন্ত্রীর উপস্থিতিতে দোয়েল একাডেমির শিশুদের শিক্ষা সনদসহ রাষ্ট্রদূতকে জনপ্রশাসন পদক ২০১৮ প্রাপ্তি উপলক্ষে দোয়েল সাংস্কৃতি সংগঠন এবং দোয়েল একাডেমি বিশেষ সম্মাননা প্রদান করার মধ্য দিয়ে রাষ্ট্রদূতকে প্রবাসীরা কৃতজ্ঞতা জানাবে।

নবগঠিত দোয়েল একাডেমির চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন দেওয়ান, সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান কামাল রহমান এবং মহাসচিব ইকবাল হোসেন সবাইকে ধন্যবাদ জানিয়ে দ্বিতীয় প্রজন্মের প্রবাসী বাংলাদেশি শিশুদের কল্যাণে কাজ করার দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।

অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি বাংলাদেশ কমিউনিটি ইন গ্রিসের সভাপতি হাজী আব্দুল কুদ্দুস নবগঠিত পরিচালনা পরিষদের সদস্যদের ফুল দিয়ে বরণ করে আগামী পথ চলায় তাদের সঙ্গে একযোগে কাজ করার অঙ্গীকার করেন। তিনি বলেন, আজ থেকে ২০ বছর পূর্বে বাংলা একাডেমির প্রতিষ্ঠা কেন হয়েছিল সেটা আজ প্রবাসী বাংলাদেশিরা খুব ভালোভাবে উপলদ্ধি করতে পারছেন। তিনি আরিফুর রহমান আরিফ (সিরাজ) কে ২০ বছর পূর্বে বাংলা একাডেমি প্রতিষ্ঠা করার জন্য ধন্যবাদ জানান। তিনি বলেন. বাংলা একাডেমির প্রতিষ্ঠার পেছনে একটাই উদ্দ্যেশ ছিল তা হলো আগামী প্রজন্মকে এদেশের মাটিতে প্রতিষ্ঠা করা। সেটা আজকে বাস্তবায়নের পথে। তিরি দোয়েল একাডেমি এবং দোয়েল সাংস্কৃতিক সংগঠনের সার্বিক কার্যক্রমের ভূয়সী প্রসংশা করেন। পরে দোয়েল একাডেমির শিশুরা চমত্কার ভাবে নাচ গান ও কবিতা পরিবেশনের মাধ্যমে উপস্থিত অতিথিদের প্রসংশা অর্জন করে। সবশেষে পঞ্চ ব্যঞ্জনে দারুন সুস্বাদু খাবার পরিবেশন করা হয়।

অনুষ্ঠানটি সফল করতে শ্রম এবং মেধা দিয়ে যারা অক্লান্তভাবে কাজ করেছেন তারা হলেন দোয়েল সাংস্কৃতিক সংগঠনের আব্দুর রাজ্জাক টিটু, আব্দুর রহিম মোল্লা, কুদ্দুস শিকদার, ইসমাইল হোসেন রানা, আনাম মোহাম্মদ, শরিফ, হোসেন খান, রায়হান, কে. এম. আরিফুর রহমান, আলমগীর হোসেন, সিরাজ হাওলাদার, মোতালেব হোসেন, পাভেল রহমান, সুজন মিয়া, স্বপন মিয়া, শিমুল, সানাউল্লা, শেখ শাহিন আক্তার, আশরাফ, নাজমুল হকসহ আরো অনেকে।

মানবকণ্ঠ/এফএইচ

Leave a Reply

Your email address will not be published.