গুপ্তধনের সন্ধানে সাগরদ্বীপে পরম-কোয়েল

গুপ্তধনের সন্ধানে সাগরদ্বীপে পরম-কোয়েলঅলিনগরের গোলকধাঁধা দেখার পর সকলেই পরিচালকের কাছে দাবি করেছিল খুব তাড়াতাড়ি আবার কিছু থ্রিলার ও অ্যাডভেঞ্চারের ছবি হাজির করতে হবে। আর পরিচালকও সকলের দাবি মেনে নিয়ে গত জুলাই মাস থেকে শুরু করে দিয়েছেন তার পরবর্তী ছবি সাগরদ্বীপে যকের ধন-এর শুটিং। তবে এই ছবিকে প্রথম ছবি যকের ধনের সিক্যুয়েল মনে করলে ভুল করবে দর্শকরা একথা স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছেন পরিচালক। ‘সিক্যুয়েল না বলে যকের ধন সিরিজের দ্বিতীয় গল্প বলতে পারেন। শুধুমাত্র চরিত্রের নাম এক আছে কিন্তু পরিস্থিতি আর অভিনেতা সবই পাল্টে গেছে এই ছবিতে’, জানালেন পরিচালক সায়ন্তন ঘোষাল।

এছাড়াও এই ছবির প্রতি পরতে লুকিয়ে রয়েছে চমক। সাগরদ্বীপে যকের ধন ছবিতে কেন্দ্রীয় চরিত্রে দেখা যাবে পরমব্রত-কোয়েল জুটিকে। হেমলক সোসাইটিতে দর্শকের মন জয় করার পর দীর্ঘদিন একসঙ্গে তাদের দেখা যায়নি। এই ছবিতে তাদের আবার একসঙ্গে বড়পর্দায় ফিরিয়ে আনতে চলেছেন সায়ন্তন ঘোষাল। সম্প্রতি থাইল্যান্ডে শুটিং সেরে ফিরেছে সাগরদ্বীপে যকের ধন দলের সদস্যরা। পরমব্রত-কোয়েল ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন গৌরব চক্রবর্তী, কৌশিক সেন ও অন্যান্যরা।

থাইল্যান্ডে শুটিং-এর অভিজ্ঞতা শেয়ার করে পরিচালক জানিয়েছেন, ‘থাইল্যান্ডের এমন কিছু জায়গায় শুট করা হয়েছে যেখানে সচরাচর মানুষ ঘুরতে যায় না। তাছাড়াও, জলের নিচে একটা দৃশ্যের শুট করা হয়েছে। পরমব্রতকে এই ছবিতে থাই-বক্সিং করতে দেখা যাবে। কোয়েলকে একটা ভয়ঙ্কর স্টান্ট করতে দেখা যাবে। এই ছবিতে এমন অনেক দৃশ্যই দেখা যাবে যা আগে কখনও মানুষ বাংলা ছবিতে দেখেনি। সত্যিই যেন আমরা গুপ্তধন খুঁজতে গিয়েছি বলে মনে হচ্ছিল!’ কলকাতা ও থাইল্যান্ডে শুটিং হয়ে গেছে। অক্টোবর মাসে সিকিমে শুট হলেই ছবির শুটিং পর্ব শেষ হবে বলে জানিয়েছেন পরিচালক।

অ্যাডভেঞ্চারের গল্পতে ব্যাকগ্রাউন্ড স্কোরেরও একটা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা থাকে। তাই শুটিং-এর পাশাপাশি জোর কদমে চলছে ব্যাকগ্রাউন্ড স্কোর তৈরির কাজও। অন্যান্য বারের মতোই এবারেও তার দায়িত্ব রয়েছে মিমোর ওপর। আর ছবির চিত্রনাট্য রচনা করেছেন সৌগত বসু। সুরিন্দর ফিল্মস প্রযোজিত সাগরদ্বীপে যকের ধন সম্ভবত আগামী বছরের শুরুতে মুক্তি পাবে।

মানবকণ্ঠ/ডিএইচ