কুমেকে শিক্ষক সংকটে প্রভাষক দিয়ে চলছে ফরেনসিক বিভাগ

কুমেকে শিক্ষক সংকট প্রভাষক দিয়ে চলছে ফরেনসিক বিভাগকুমিল্লা মেডিকেল কলেজে (কুমেক) শিক্সক সংকটে প্রভাষক দিয়ে চলছে ফরেনসিক বিভাগ। কলেজটিতে ৫৫টি শিক্ষক পদ শূন্য রয়েছে। ১৫০টি অনুমোদিত শিক্ষক পদের মধ্যে ৯৫জন শিক্ষক কর্মরত রয়েছে। খালি রয়েছে ৫৫টি শিক্ষক পদ। শিক্ষকের চাহিদা রয়েছে প্রায় দ্বিগুণ। বিপুল সংখ্যক শিক্ষক পদ খালি থাকায় কলেজটিতে পাঠদান চরমভাবে ব্যাহত হচ্ছে। অনুমোদিত পদের বিপরীতে সবচেয়ে বেশি খালি রয়েছে অধ্যাপক পদে।

কুমেক সূত্র জানায়, কুমিল্লা মেডিকেল কলেজে অধ্যাপকের ২৪টি অনুমোদিত পদের বিপরীতে মাত্র ৮জন শিক্ষক রয়েছে, খালি রয়েছে ১৬টি পদ। সহযোগী অধ্যাপকের ৩৫টি পদের বিপরীতে ২২ জন শিক্ষক রয়েছে, খালি ১৩টি পদ। সহকারী অধ্যাপকের ৫৪টি পদের বিপরীতে শিক্ষক রয়েছে ২৯জন, খালি রয়েছে ২৫টি পদ।

অপরদিকে কিউরেটর, প্রভাষক/ প্যাথলজিস্ট, বায়োকেমিস্ট/ ফার্মাসিস্টের ৩৭টি পদের বিপরীতে একটি পদ খালি রয়েছে। অধ্যাপক পদে এনটামি ১, ফিজিওলজি ১, ফার্মাকোলজি ১, কমিউনিটি মেডিসিন ১, ফরেনসিক মেডিসিন ১, প্যাথলজি ১, মাইক্রোবায়োলজি ১, সার্জারি ২, অর্থো-সার্জারি ১, শিশু ১, কার্ডিওলজি ১, বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ১, ট্রান্সফিউশন মেডিসিন ১ এবং চর্ম ও যৌন বিভাগে ১টি পদ খালি রয়েছে। সহযোগী অধ্যাপক পদে এনাটমি ১, ফিজিওলজি ১, ফার্মাকোলজি ১, ফরেনসিক মেডিসিন ১, প্যাথলজি ১, মাইক্রোবায়োলজি ১, কমিউনিটি মেডিসিন ১, বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ১, নিউরোসার্জারি ১, শিশু সার্জারি ১, রেডিওলজি ১ এবং রেডিওথেরাপি বিভাগে ১টি পদ শূন্য রয়েছে। সহকারী অধ্যাপক পদে এনাটমি (পবি) ১, ফিজিওলজি ১, বায়োকেমিস্ট্রি ১, প্যাথলজি ১, ফরেনসিক মেডিসিন (পবি) ১, সার্জারিতে ৩, গাইনি ২, ফিজিক্যাল মেডিসিন এন্ড রিহ্যাবিটেশন ১, অর্থো- সার্জারি ২, কার্ডিওলজি ১, সাইকিয়াট্রি ১, ট্রান্সফিউশন মেডিসিন ১, ইএনটি ১, এসেথেসিওলজি ১, রেডিওলজি ১, রেডিওলজি ১, পেডিয়াট্রিক সার্জারি ১, পেডিয়াট্রিক নেফ্রোলজি ১, নিওরোলজি ১, ডেন্টিস্ট ১ এবং স্পোটর্স মেডিসিন এন্ড অর্থোসকপি বিভাগে ১ টি পদ খালি রয়েছে। এছাড়া প্রভাষক পদে মাইক্রোবায়োলজিতে খালি রয়েছে ১টি পদ।

এ দিকে, কুমিল্লা মেডিকেল কলেজের একটি সূত্র জানায়, কলেজের অন্যতম বিভাগ হলো ফরেনসিক বিভাগ। অবাক হলেও সত্য যে, এই বিভাগে নেই অধ্যাপক, সহকারী অধ্যাপক এবং সহযোগী অধ্যাপকের মত কোন পদ। গুরুত্বপূর্ন এই বিভাগটি চলছে শুধু মাত্র তিনজন প্রভাষক দিয়ে।

শূন্য পদের বিষয়ে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ ডা. মহসিন উজ্ জামান চৌধুরী জানান, আমাদের ৫৫টি শিক্ষক পদ শূন্য রয়েছে। শূন্য পদের কারণে কলেজ ও মেডিকেলে নানা সমস্যা সৃষ্টি হচ্ছে। বিশেষ করে অধ্যাপক পদগুলোর কারণে আমাদের বেশ অসুবিধার মধ্যে পড়তে হচ্ছে। শূন্য পদ পূরণ ও নতুন পদ সৃষ্টির ব্যাপারে মন্ত্রণালয়ে যোগাযোগ করা হয়েছে। আশা করি ইতিবাচক ফল পাবো।

মানবকণ্ঠ/ডিএইচ