কুমিল্লার সড়কে একদিনে প্রাণ গেল ৬ জনের

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কুমিল্লা অংশে পৃথক তিনটি সড়ক দুর্ঘটনায় ৬ জন নিহত হয়েছেন। শনিবর সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত পৃথক দুর্ঘটনায় এসব প্রাণহানি ঘটেছে। এ সময় আহত হয়েছেন অর্ধশতাধিক।

দাউদকান্দি হাইওয়ে পুলিশের ওসি আবুল কালাম আজাদ জানান, শনিবার সকালে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কুমিল্লার দাউদকান্দি উপজেলার ইলিয়টগঞ্জ সড়কের পাশে দাঁড়িয়ে থাকা একটি কাভার্ডভ্যানকে ঢাকাগামী গ্রিন লাইন পরিবহনের একটি যাত্রীবাহী বাস ধাক্কা দেয়। এতে কাভার্ডভ্যানের চালক ও বাসের সুপারভাইজার ফাহাদ আলী রাজী গুরুতর আহত হন। পরে স্থানীয়রা ফাহাদকে গৌরীপুরে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়া গেলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। আর কাভার্ডভ্যান চালকে ঢাকায় নেয়ার পথে মারা যান। তার নাম-পরিচয় জানা যায়নি।

এদিকে দুপুরে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের ময়নামতি হাইওয়ে পুলিশের রেকারের ধাক্কায় বেদে সম্প্রদায়ের অজ্ঞাত এক নারীর মৃত্যু হয়েছে। ময়নামতি হাইওয়ে পুলিশের ওসি মাহবুবুর রহমান জানান, মারুতি পরিবহন থেকে নামার সময় পড়ে গিয়ে রেকারের ধাক্কায় ওই নারীর মৃত্যু হয়েছে। তার নাম-পরিচয় জানার চেষ্টা চলছে।

একইদিন কুমিল্লার দাউদকান্দি উপজেলায় যাত্রীবাহী একটি বাস নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে খাদে পড়ে তিনজন নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন কমপক্ষে ৫০ জন। শনিবার বিকেল সোয়া ৩টায় ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের গৌরিপুর বাসস্ট্যান্ডের পশ্চিম পাশে এ দুর্ঘটনা ঘটে। হতাহতদের পরিচয় নিশ্চিত হওয়া যায়নি। তবে নিহতদের মধ্যে দুইজন পুরুষ ও একজন নারী পথচারী রয়েছেন বলে জানিয়েছে পুলিশ।

দাউদকান্দি হাইওয়ে পুলিশের ওসি আবুল কালাম আজাদ জানান, শনিবার বিকেলে ঢাকা থেকে চট্টগ্রামগামী ‘মায়ের দোয়া’ পরিবহনের একটি বাস গৌরিপুর বাসস্ট্যান্ডের পশ্চিম পাশে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে এক নারী পথচারীকে চাপা দিয়ে খাদে পড়ে যায়। এতে ঘটনাস্থলে বাসের দুই যাত্রী নিহত হন। এ সময় আহত হন অন্তত ৫০ জন যাত্রী। আহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। নিহতদের মরদেহ ও দুর্ঘটনাকবলিত গাড়ি থানা আনা হয়েছে।

মানবকণ্ঠ/এফএইচ