কলকাতায় হাসিনার কুশপুত্তলিকা পোড়ানোয় ক্ষুব্ধ মমতা

মমতাপশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছেন, কলকাতায় বিশ্ব হিন্দু পরিষদ যেভাবে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কুশপুত্তলিকা পুড়িয়েছে তাতে ভারত-বাংলাদেশ সম্পর্ক খারাপ হতে পারে। ওই ঘটনায় ক্ষুব্ধ হয়ে শনিবার ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজকে চিঠি লিখে নালিশ জানিয়েছেন মমতা।

মমতা বলেছেন, বিশ্ব হিন্দু পরিষদের তৎপরতায় দু’দেশের মধ্যে সম্পর্ক শক্তিশালী হবে না। কেন্দ্রীয় সরকার ঢাকাকে পাশে পেতে চাইলে আরএসএসের এরকম জঙ্গিপনা বন্ধ করতে হবে। মমতার প্রশ্ন- বিশ্ব হিন্দু পরিষদ যে আচরণ করেছে তাতে বাংলাদেশের সঙ্গে সম্পর্কের উন্নতি হবে কীভাবে?

বাংলাদেশে সংখ্যালঘু নির্যাতনের প্রতিবাদে গত ১ জুলাই কোলকাতার পার্ক সার্কাসে বাংলাদেশ উপ-দূতাবাসের সামনে বিশ্ব হিন্দু পরিষদ বিক্ষোভ করে। বিশ্ব হিন্দু পরিষদের মুখপাত্র সৌরীশ মুখোপাধ্যায়ের দাবি, ওই বিক্ষোভে ঢাকার সঙ্গে নয়াদিল্লির সম্পর্ক খারাপ হবে বলে তারা মনে করেন না।

হিন্দুত্ববাদী সংগঠনটি বলছে, শেখ হাসিনা ভারতবাসীর পছন্দের নেত্রী হলেও যেভাবে তার শাসনামলেও বাংলাদেশের বিভিন্ন জায়গায় সংখ্যালঘুদের উপর আক্রমণ হচ্ছে তা নিন্দনীয়। বাংলাদেশ সরকার যাতে সে দেশের সংখ্যালঘুদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করে, সেই দাবিতেই বিক্ষোভ হয়েছিল।

পশ্চিমবঙ্গ প্রশাসন অবশ্য মনে করে, কোনো বন্ধু দেশের প্রধানমন্ত্রীর কুশপুত্তলিকা পোড়ানো মোটেই ভালো কাজ নয়। যখন এক দিকে চীন এবং অন্য দিকে পাকিস্তান ভারতকে বিব্রত করছে, তখন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশে এমন আচরণ ঠিক নয়।

মমতার অনড় মনোভাবের কারণে তিস্তার জল চুক্তি নিয়ে দু’দেশের মধ্যে টানাপড়েনের মধ্যেও মমতা বারবারই বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে তার সুসম্পর্কের কথা বলেছেন। সেক্ষেত্রে বিশ্ব হিন্দু পরিষদ যেভাবে শেখ হাসিনার কুশপুত্তলিকা পুড়িয়ে বিক্ষোভ দেখিয়েছে তা মেনে নিতে পারেননি মমতা। তাছাড়া, ওই ঘটনায় প্রতিবেশী বন্ধু দেশের সঙ্গে ভারতের সম্পর্কের অবনতি হতে পারে বলে মমতা আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন।

মানবকণ্ঠ/জেডএইচ

Leave a Reply

Your email address will not be published.