ওয়ালটন পণ্য কিনে কোটি কোটি টাকার ক্যাশ ভাউচার পাওয়ার সুযোগ

ওয়ালটন পণ্য কিনে কোটি কোটি টাকার ক্যাশ ভাউচার পাওয়ার সুযোগ

শুরু হচ্ছে ২৪তম ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা। এই উপলক্ষে দেশব্যাপী ডিজিটাল ক্যাম্পেইন সিজন-৪ চালুর ঘোষণা দিয়েছে ওয়ালটন। এর আওতায় ওয়ালটন পণ্য কিনে রেজিস্টেশন করলেই ক্রেতারা পাবেন সর্বোচ্চ এক লাখ টাকার ক্যাশ ভাউচার। পেতে পারেন কোটি কোটি টাকার ক্যাশ ভাউচারসহ মোটরসাইকেল, এয়ার কন্ডিশনার, ল্যাপটপ, ফ্রিজ, এলইডি টিভি, ওভেনসহ অসংখ্য পণ্য ফ্রি। রয়েছে নিশ্চিত ক্যাশব্যাক। অনলাইনের মাধ্যমে ওয়ালটন ই-প্লাজা থেকে পণ্য কিনেও এসব সুবিধা পাবেন ক্রেতারা। বাণিজ্য মেলার পুরো মাস জুড়ে সারা দেশে মিলবে এসব সুবিধা।

মঙ্গলবার রাজধানীতে ওয়ালটন কর্পোরেট অফিসের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত ‘ডিজিটাল ক্যাম্পেইন সিজন-৪’ অনুষ্ঠানে এসব তথ্য জানানো হয়। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ওয়ালটন গ্রুপের এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টরস ইভা রিজওয়ানা, মো. এমদাদুল হক সরকার, নজরুল ইসলাম সরকার, এসএম জাহিদ হাসান, মোহাম্মদ রায়হান ও তানভীর রহমান, ডেপুটি এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টরস উদয় হাকিম ও আরিফুল আম্বিয়া প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে তারা জানান, ডিজিটাল ক্যাম্পেইনের আগের সিজনগুলোতে গ্রাহকদের ব্যাপক সাড়া বিবেচনায় নিয়ে নতুন বছর ও ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা-২০১৯ উপলক্ষে সিজন-ফোর শুরু করলো ওয়ালটন। বিক্রয়োত্তর সেবা আরো সহজতর করতে গ্রাহকদের অনলাইন ডাটাবেজ তৈরির জন্য ডিজিটাল ক্যাম্পেইন চালাচ্ছে ওয়ালটন।

ওয়ালটন পণ্য কিনে কোটি কোটি টাকার ক্যাশ ভাউচার পাওয়ার সুযোগ

ক্যাম্পেইনের আওতায় বাণিজ্য মেলায় ওয়ালটন প্যাভিলিয়নসহ দেশের যে কোনো প্লাজা ও পরিবেশক শোরুম থেকে ফ্রিজ, টিভি, এসি, ল্যাপটপ, কম্পিউটার, ওয়াশিং মেশিন, জেনারেটর ও মাইক্রোওয়েব ওভেন কিনে মোবাইল ফোনে এসএসএম এর মাধ্যমে রেজিস্ট্রেশন করলেই ক্রেতারা পাবেন ২’শ থেকে ১ লাখ টাকা পর্যন্ত নিশ্চিত ক্যাশ ভাউচার অথবা মোটরসাইকেল, এয়ার কন্ডিশনার, ল্যাপটপ, ফ্রিজ, এলইডি টিভি, ওভেনসহ অসংখ্য পণ্য ফ্রি।

ওয়ালটন কর্তৃপক্ষ জানায়, গত বছর ১ এপ্রিল থেকে ৩০ জুন পর্যন্ত চালানো ডিজিটাল ক্যাম্পেইন সিজন-১ এর আওতায় ওয়ালটন পণ্য কিনে আমেরিকা ও রাশিয়া ভ্রমণের ফ্রি বিমান টিকিট পেয়েছিলেন বেশ কয়েকজন ক্রেতা। সিজন-২ ও ৩ এ হাজার হাজার ক্রেতা ফ্রি পেয়েছেন নতুন গাড়ী, মোটরসাইকেল, ফ্রিজ, টিভি, এসিসহ বিভিন্ন ওয়ালটন পণ্য।

ওয়ালটনের ডেপুটি এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর আরিফুল আম্বিয়া বলেন, মেলায় ওয়ালটন প্যাভিলিয়নের পাশাপাশি দেশের যেকোনো শোরুম থেকে পণ্য কেনার পর গ্রাহক তার মোবাইল ফোন থেকে এসএমএস পাঠিয়ে তা রেজিস্ট্রেশন করে নিবেন। এ প্রক্রিয়ায় গ্রাহকের নাম, ফোন নম্বর এবং ক্রয়কৃত পণ্যের মডেল নম্বরসহ বিস্তারিত ওয়ালটনের সার্ভারে সংরক্ষণ করা হয়। এর ফলে, ওয়ারেন্টি কার্ড হারিয়ে ফেললেও দেশের যেকোনো ওয়ালটন সার্ভিস সেন্টার থেকে খুব দ্রুত কাঙ্খিত সেবা নিতে পারবেন গ্রাহক। সার্ভিস সেন্টারের প্রতিনিধিরাও গ্রাহকের ফিডব্যাক জানতে পারবেন।

উল্লেখ্য, গাজীপুরের চন্দ্রায় ওয়ালটন হাই-টেক ইন্ডাস্ট্রিজে বিশ্বের লেটেস্ট সব প্রযুক্তি, কাঁচামাল ও মেশিনারিজের সমন্বয়ে তৈরি হচ্ছে আন্তর্জাতিকমান সম্পন্ন ব্যাপক বিদ্যুৎ সাশ্রয়ী ইনভার্টার প্রযুক্তির ফ্রস্ট ও নন-ফ্রস্ট রেফ্রিজারেটর, ফ্রিজার, এলইডি ও স্মার্ট টেলিভিশন, এয়ার কন্ডিশনারসহ, মোবাইল ফোন, ল্যাপটপ, সিলিং, টেবিল, দেয়াল, রিচার্জেবল ফ্যানসহ অসংখ্য ইলেকট্রনিক্স, হোম ও ইলেকট্রিক্যাল অ্যাপ্লায়েন্সেস। এসব পণ্যের উৎপাদন প্রক্রিয়ায় সর্বাধিক উচ্চ গুণগতমান নিশ্চিত করার প্রতি দেয়া হয় সর্বাধিক গুরুত্ব। ফলে, ফ্রিজে এক বছরের রিপ্লেসমেন্ট গ্যারান্টির পাশাপাশি এলইডি টেলিভিশন ও এসিতে ৬ মাসের রিপ্লেসমেন্ট গ্যারান্টি রয়েছে।

এছাড়াও এশিয়া, মধ্য-প্রাচ্য, আফ্রিকাসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে রফতানি হচ্ছে ওয়ালটন ফ্রিজ, টেলিভিশন, মোবাইল ফোন, ল্যাপটপ, বৈদ্যুতিক ফ্যানসহ হোম অ্যাপ্লায়েন্সেস। রফতানি হচ্ছে ফ্রিজে ব্যবহৃত যন্ত্রাংশ ও কাঁচামাল। ওয়ালটনের টার্গেট এখন ইউরোপ, আমেরিকা, অস্ট্রেলিয়ার মতো বিশ্বের শীর্ষ বাজারগুলো।

জানা গেছে, ২০১৯ সালে ২০ লাখ ফ্রিজ বিক্রির টার্গেট নিয়েছে ওয়ালটন। যা হবে বাংলাদেশের বাজারে একটি বিরল মাইলফলক।

মানবকণ্ঠ/এসএস

Leave a Reply

Your email address will not be published.