এক কেন্দ্রীয় ও ৯ তৃণমূল নেতাকে শোকজ করেছে আওয়ামী লীগ

এক কেন্দ্রীয় ও ৯ তৃণমূল নেতাকে শোকজ করেছে আওয়ামী লীগ

অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্ব-কোন্দলে জড়িত থাকার অভিযোগে কেন্দ্রীয়, মহানগর ও জেলা-উপজেলা পর্যায়ের নেতাদের শোকজ (কারণ দর্শানোর নোটিশ) করেছে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ। দলের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের স্বাক্ষরিত নোটিশে ১৫ দিনের মধ্যে জবাব চাওয়া হয়েছে। এ ছাড়া আলাদা চিঠিতে কেন ঐক্য ধরে রাখতে ব্যর্থ হয়েছেন- তার ব্যাখ্যা চাওয়া হয়েছে আরো তিনজন দলীয় সংসদ সদস্যের কাছে। দলীয় সূত্র এসব তথ্য নিশ্চিত করেছে।

সূত্র জানায়, শোকজ করা ব্যক্তিদের মধ্যে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক মিসবাউদ্দিন সিরাজ রয়েছেন। তার বিরুদ্ধে সিলেট সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে দলীয় প্রার্থীর বিরুদ্ধে কাজ করার অভিযোগ রয়েছে। এ ছাড়া সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আসাদ উদ্দিন, মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ফসিউল চৌধুরী নাদেলকেও শোকজ করা হয়েছে।

এ ছাড়া বীরগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি জাকারিয়া জাকা, দিনাজপুর জেলা আইন সম্পাদক অ্যডভোকেট হামিদুল ইসলাম, রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান আসাদ, সাংগঠনিক সম্পাদক আহসানুল হক মাসুম, বরগুনা জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির, সাংগঠনিক সম্পাদক গোলাম সরোয়ার টিপু, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ দেলেয়ার হোসেনকে শোকজ করে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ। সূত্র জানায়, শোকজ নোটিশে তাদের বিরুদ্ধে সংগঠনের ৪৭ (চ) ও (থ) ধারা লংঘনের অভিযোগ করা হয়েছে।

এ ছাড়া আরো তিনজন সংসদ সদস্যদের কাছে চিঠি দিয়েছে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ। তারা হলেন- দিনাজপুর-১ (বীরগঞ্জ-কাহারোল) আসনের আওয়ামী লীগের এমপি মনোরঞ্জন শীল গোপাল এবং বরগুনা-১ আসনের এমপি ও বরগুনা জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট ধীরেন্দ্র দেবনাথ শম্ভু এবং রাজশাহী-৫ (পুঠিয়া-দুর্গাপুর) আসনের এমপি কাজী আবদুল ওয়াদুদ দারা। চিঠিতে কেন তারা দলীয় ঐক্য ধরে রাখতে ব্যর্থ হয়েছেন তার ব্যাখ্যা জানতে চাওয়া হয়েছে। তাদেরকেও ১৫ দিনের সময় বেঁধে দেয়া হয়েছে।

প্রসঙ্গত, গত ৫ সেপ্টেম্বর মনোরঞ্জন শীল গোপালকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করে বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে বীরগঞ্জ ও কাহারোল আওয়ামী লীগের একাংশ। দিনাজপুরের বীরগঞ্জ উপজেলার বিজয় চত্বরে এ বিক্ষোভ সমাবেশের আয়োজন করে বীরগঞ্জ-কাহারোল আওয়ামী ঐক্য পরিষদ। এ সময় দিনাজপুর-পঞ্চগড় মহাসড়ক দেড় ঘণ্টা অবরোধ করে রাখা হয়। সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, সংগঠনটির আহ্বায়ক অ্যাডভোকেট হামিদুল ইসলাম, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি জাকারিয়া জাকা, বীরগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান সাবেক এমপি আমিনুল ইসলাম, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক নেতা আবু হুসাইন বিপু। এ সময় বক্তারা এমপি গোপালের বিভিন্ন অনিয়ম ও দুর্নীতি তুলে ধরেন।

এর একদিন আগে গত মঙ্গলবার অনিয়ম, দুর্নীতি, মাদক বাণিজ্য ও অপরাজনীতিসহ ২৪ অভিযোগে ধীরেন্দ্র দেবনাথ শম্ভুকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করে বরগুনা জেলা আওয়ামী লীগের একাংশ। জেলার সাধারণ সম্পাদক মো. জাহাঙ্গীর কবিরের নেতৃত্বে বরগুনা প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে তাকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করা হয়। এ সময় বরগুনা জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও সাবেক এমপি দেলোয়ার হোসেনসহ বরগুনা জেলা, সদর উপজেলা ও পৌর আওয়ামী লীগের শীর্ষ পর্যায়ের বেশ কয়েকজন নেতা উপস্থিত ছিলেন।

কাজী আবদুল ওয়াদুদ দারার বিরুদ্ধে নিয়োগ, স্কুল-কলেজ সরকারিকরণ বা শিক্ষকদের এমপিওভুক্তির জন্য টাকা নেয়া, ত্রাণ বিতরণে স্বজনপ্রীতি, টাকার লেনদেন, জামায়াত-বিএনপির লোকদের আওয়ামী লীগে এনে স্থানীয় নেতৃত্ব দেয়ার জন্য টাকা নেয়াসহ আরো বেশ কিছু অভিযোগ তোলা হয়েছে। এসব অভিযোগ দলীয় সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে লিখিতভাবে পাঠানো হয়েছে। গত ৭ মে দুর্গাপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও পৌরসভার মেয়র তোফাজ্জল হোসেন, জেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা ও কিশমতগণকৈড় ইউপি চেয়ারম্যান আফসার আলী মোল্লা, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা আওয়ামী লীগ সভাপতি বানেছা বেগম, ভাইস চেয়ারম্যান জামাল উদ্দীন, পানানগর ইউপি চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগ নেতা আজাহার আলী, আওয়ামী লীগ নেতা ও দেলুয়াবাড়ি ইউপি চেয়ারম্যান রিয়াজুল ইসলাম, জয়নগর ইউপি চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগ নেতা সমশের আলী এমপি কাজী আবদুল ওয়াদুদ দারার বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রীর কাছে লিখিত অভিযোগ পাঠিয়েছেন।

এর আগে গত বৃহস্পতিবার গণভবনে আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী কমিটির বৈঠকে দলের মধ্যে যারা অসুস্থ প্রতিযোগিতায় লিপ্ত তাদের শেষ বারের মতো সতর্ক করে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার নির্দেশ দেয়া হয়। ওই বৈঠকেই নিজেদের মধ্যে দলাদলি করে এক গ্রুপ আরেক গ্রুপকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করার প্রবণতা বন্ধ করতে কঠোর পদক্ষেপ নেয়ার বিষয়ে আলোচনা হয়। কিন্তু তারপরেও থামছে না এই অবাঞ্ছিত করার ঘটনা।

সর্বশেষ গতকাল সোমবার বরিশাল-৪ আসনের (মেহেন্দিগঞ্জ, হিজলা, কাজীরহাট) এমপি পঙ্কজ দেবনাথের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগ এনে সংবাদ সম্মেলন করেছেন স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা। জাতীয় প্রেসক্লাবে ‘নির্যাতন-সন্ত্রাস-দুর্নীতি-মাদক প্রতিরোধ কমিটি’ ব্যানারের ওই সংবাদ সম্মেলনে মূলত স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতারাই ছিলেন। এই সংগঠনের সদস্য সচিব হলে মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক আনোয়ার হোসেন সাগর আর আহ্বায়ক ও হিজলা উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি, সাবেক চেয়ারম্যান আলহাজ ইকবাল মাতুব্বর।

মানবকণ্ঠ/এসএস

Leave a Reply

Your email address will not be published.