ঈদে জমজমাট তৃণমূলের নির্বাচনী রাজনীতি

নির্বাচনী বছরের মাঝামাঝি সময়ে এবারের ঈদে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা বেশিরভাগই ঈদ করবেন নিজ নিজ নির্বাচনী এলাকায়। যারা এলাকায় ঈদ করতে পারছেন না তারাও আগে বা পরে সময় করে দেখা করে আসবেন নিজ এলাকার মানুষের সঙ্গে। কেউ কেউ আবার ঈদের দিন সকালে ঢাকায় থেকে দলীয় সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে দেখা করে ওই দিনই চলে যাবেন এলাকায়। সব মিলিয়ে এবার ঈদ উদ?যাপন আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের কাছে অনেকটা নির্বাচনী প্রস্তুতিতে রূপ নিয়েছে।

আওয়ামী লীগ নেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, একাদশ সংসদ নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন দেয়ার ক্ষেত্রে এবার সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দেয়া হবে তৃণমূলের জনমতকে। এ ছাড়া দলীয় সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী দলের নেতাকর্মীদের বিশেষ করে মন্ত্রীদের ঈদে এলাকার মানুষের কাছে যাওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন। এরফলে এবারের ঈদে এলাকার মানুষের কাছে যাওয়া-আসার মধ্যেই বেশি ব্যস্ত দলের নেতা-মন্ত্রীরা। সেখানে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে যোগ দেয়ার পাশাপাশি অভ্যন্তরীণ কোন্দল থাকলে তা মিটিয়ে চেষ্টা করছেন দূরত্ব কমানোর। অনেকে আবার নেতাকর্মী ও সাধারণ মানুষের জন্য নিয়ে যাচ্ছেন বিভিন্ন উপহারও।

আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঈদ করবেন ঢাকায় তার সরকারি বাসভবন গণভবনে। ঈদের নামাজের পর প্রতি বছরের মতই সকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আওয়ামী লীগসহ রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মী, বিদেশি কূটনীতিক, পেশাজীবীসহ বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষের সঙ্গে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করবেন। প্রধানমন্ত্রী সকাল ৯টা থেকে ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময় শুরু করবেন।

আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও সংসদ উপনেতা সাজেদা চৌধুরী শারীরীকভাবে অসুস্থ। এ কারণে এবার তিনি এলাকায় যেতে পারবেন না বলে জানা গেছে। এরফলে তাকে এবার ঢাকাতেই ঈদ করতে হচ্ছে। তবে প্রতিবারের মতো এবারো নিজ এলাকার মানুষের সঙ্গে ঈদ করবেন শিল্পমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদ সদস্য আমির হোসেন আমু।

এর আগেও তিনি নিজ এলাকার ঝালকাঠির মানুষের সঙ্গে দেখা করে এসেছেন। উপদেষ্টা পরিষদের আরেক সদস্য ও বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ ঈদ করবেন তার নির্বাচনী এলাকা ভোলায়। ঈদের একদিন আগে তার এলাকায় যাওয়ার কথা রয়েছে।

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের ঈদ করবেন তার নিজ নির্বাচনী এলাকা নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জে। সেখানে দলের নেতাকর্মী ও সাধারণ মানুষের সঙ্গে ঈদের নামাজ পরবেন তিনি।

সভাপতিমণ্ডলীর সদস্যদের মধ্যে স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম এবার ঈদে নিজ এলাকা সিরাজগঞ্জের কাজীপুরে যাচ্ছেন না। তিনি এবার ঢাকায় ঈদ করবেন। তিনি সাধারণত ঈদুল আযহা নিজ এলাকায় করেন। তবে ঈদের আগে পরে এলাকায় গিয়ে মানুষের সঙ্গে দেখা করবেন। সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও কৃষিমন্ত্রী বেগম মতিয়া চৌধুরী ঈদ করবেন ঢাকায়। তবে তিনি ঈদের আগেই নির্বাচনী এলাকার জনগণের সঙ্গে দেখা করে এসেছেন। সভাপতিমণ্ডলীর আরেক সদস্য পীযুষ কান্তি ভট্টাচার্যও ঈদ করবেন ঢাকায়। তবে ঈদের আগে পরে তিনিও যাবেন নিজ এলাকায়।

সভাপতিমণ্ডলীর আরেক সদস্য সাবেক মন্ত্রী ড. আবদুর রাজ্জাক ঈদের নামাজ আদায় করবেন ঢাকায়। জাতীয় ঈদগাহ ময়দানে তিনি নামাজ আদায় করবেন। এরপর গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও বঙ্গভবনে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদের সঙ্গে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করবেন। এরপর পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে সময় কাটাবেন। আর লে. কর্নেল (অব.) মুহাম্মদ ফারুক খান ঈদ করবেন ঢাকায়। ক্যান্টনমেন্ট মসজিদে নামাজ আদায় করে গণভবন ও বঙ্গভবনে যাবেন তিনি।

সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য কাজী জাফর উল্লাহ ঈদ করবেন তার নির্বাচনী এলাকা ফরিদপুরে। এরমধ্যে গত ১০ দিন তিনি এলাকায় অবস্থান করছেন। ঈদ করে ঢাকায় ফিরবেন। সভাপতিমণ্ডলীর আরেক সদস্য ও শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ ঈদ করবেন ঢাকায়। তিনিও ঈদের আগেই এলাকায় নেতাকর্মীদের সঙ্গে কুশলবিনিময় করে এসেছেন। আবার ঈদের পরে যাবেন।

প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কানাডা গিয়েছিলেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ। প্রধানমন্ত্রী দেশে ফিরলেও তিনি ঈদের পরে দেশে ফিরবেন বলে জানা গেছে। তবে রোজার মধ্যে বেশ কয়েকবার তিনি নিজ এলাকা কুষ্টিয়া ঘুরে এসেছেন। বিদেশ থেকে দেশে ফিরে আরো কয়েকটি অনুষ্ঠানে যোগ দেয়ার কথা রয়েছে তার। অ্যাডভোকেট জাহাঙ্গীর কবির নানক ঈদ করবেন নিজ নির্বাচনী এলাকা ঢাকায়। যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক দীপু মণি নিজ এলাকা চাঁদপুরের মানুষের সঙ্গে ঈদ করবেন। এ ছাড়া আরেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আবদুর রহমানও ঈদ করবেন তার নিজ এলাকা ফরিদপুরের মানুষের সঙ্গে।

দলটির কৃষি বিষয়ক সম্পাদক ফরিদুন্নাহার লাইলী শারীরিকভাবে অসুস্থ থাকায় ঢাকায় থাকছেন। ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক সুতিজ রায় নন্দী রোজার শুরু থেকেই নিজ এলাকা চাঁদপুরে আসা যাওয়ার মধ্যেই আছেন। তিনি এবার নিজ নির্বাচনী এলাকার মানুষের সঙ্গেই ঈদ করবেন। আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক শাম্মী আহমেদ এবং বন পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক দোলোয়ার হোসেন ঈদ করবেন ঢাকায়। আর সাংস্কৃতিক সম্পাদক অসীম কুমার উকিল ঈদের দিন সকালে ঢাকায় থাকলেও প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করার পরেই চলে যাবেন নিজ এলাকা নেত্রকোনায়। ঈদের আগেও বেশ কয়েকবার তিনি এলাকায় গিয়ে ঘুরে এসেছেন। বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার মো. আবদুস সবুর ঢাকায় ঈদ করবেন। তবে ঈদের দিন দুপুরেই তিনি যাবেন নিজ এলাকা কুমিল্লার দাউদকান্দি ও মেঘনায়।

সাংগঠনিক সম্পাদকদের মধ্যে আহমেদ হোসেন, আ ফ ম বাহা উদ্দিন নাসিম ও খালিদ মাহমুদ চৌধুরী এবার ঈদে ঢাকায় থাকছেন। তবে তারা তিন জনই ঈদের আগে নিজ নিজ এলাকার মানুষের সঙ্গে দেখা করে এসেছেন। ইফতার পার্টিসহ অংশ নিয়েছেন বেশ কিছু অনুষ্ঠানেও। ঈদের পরপরই আবার এলাকায় গিয়ে বেশ কিছু অনুষ্ঠানে অংশ নেবেন বলে জানান তারা।

এ ছাড়া আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন জয়পুরহাটের নিজ নির্বাচনী এলাকায় ঈদ উদযাপন করবেন। নিজ এলাকার মানুষের সঙ্গে ঈদ করছেন আরেক সাংগঠনিক সম্পাদক এ কে এম এনামুল হক শামীম। আরেক সাংগঠনিক সম্পাদক ব্যারিস্টার মুহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল ঈদ করবেন নিজ এলাকা চট্টগ্রামে।

এ ছাড়া আওয়ামী লীগের এমপি ও নতুন মনোনয়ন প্রত্যাশীদের বেশিরভাগই নিজ নিজ এলাকার মানুষের সঙ্গে ঈদ করবেন। ঈদকে জনগণের কাছে যাওয়ার মোক্ষম সুযোগ হিসেবে নিচ্ছেন। সাধ্যমত নেতাকর্মী ও মানুষের পাশে থাকার চেষ্টা করছেন। তাদের অনেকে আবার পোস্টার-ব্যানারে ছেয়ে ফেলেছেন নিজ নিজ নির্বাচনী এলাকা। সব মিলেয়ে এবার ঈদে চাঙা হবে তৃণমূলে আওয়ামী লীগের রাজনীতি।

মানবকণ্ঠ/বিএ

Leave a Reply

Your email address will not be published.