ইসির নির্দেশনা মানেননি ডিসিরা

টাঙ্গাইল-৮ আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছিলেন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের প্রার্থী আব্দুল লতিফ মিয়া। মনোনয়পত্র পূরণ করার সময় বানানে ভুল হওয়ায় নিজের নাম ও আসন নম্বর ফ্লুইড দিয়ে মুছে শুদ্ধ করেছিলেন তিনি। এতেই বাধে বিপত্তি। ফ্লুইড দিয়ে মুছে পরিবর্তনের কারণ দেখিয়ে তার মনোনয়নপত্রটি বাতিল করে দেন রিটার্নিং কর্মকর্তা। ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৬ আসনে বিএনপির প্রার্থী মোহাম্মদ জিয়াউদ্দিনের মনোনয়নপত্রটিও বাতিল করা হয়েছে। তার মনোনয়নপত্র বাতিল করার কারণ হিসেবে জেলা প্রশাসক তথা রিটার্নিং কর্মকর্তা বলেছেন- রাজনৈতিক দলের মনোনয়নে প্রার্থী ঘষামাজা করেছেন।

শুধু এই দুটি আসনেই নয়, এমন ঠুনকো সব কারণে বাতিল করা হয়েছে শত শত মনোনয়নপত্র। সেসব ভুল সংশোধনযোগ্য। ১০ নভেম্বর রিটার্নিং কর্মকর্তাদের এ সংক্রান্ত নির্দেশনাও দিয়েছিল নির্বাচন কমিশন (ইসি)। একটি পরিপত্র জারি করে রিটার্নিং কর্মকর্তাদের বলা হয়েছিলন ছোটখাটো ত্রুটির জন্য কোনো মনোনয়নপত্র বাতিল করা যাবে না। যদি বাছাইয়ের সময় এমন কোনো ত্রুটি বিচ্যুতি নজরে আসে যা তাৎক্ষণিকভাবে সংশোধন সম্ভব, তা হলে মনোনয়নপত্র দাখিলকারীর দ্বারা তা সংশোধন করিয়ে নিতে হবে। ইসির এই নির্দেশনা সত্ত্বেও প্রার্থীর স্বাক্ষর নেই, টিপসই নেই, স্ট্যাম্প সংযোজন না করা, শিক্ষাগত যোগতার সনদ না দেয়া, আয়কর রিটার্ন জমা না দেয়া ইত্যাদি নানা কারণে মনোনয়নপত্র বাতিল করেছেন রিটার্নিং কর্মকর্তারা।

এ বিষয়গুলোর আইনি ভিত্তি নিয়ে ইসি কর্মকর্তাদের কাছে জানতে চাওয়া হলে, তারা বলেন, রিটার্নিং কর্মকর্তাদের এটি ঠিক হয়নি। ছোটখাটো ভুলের জন্য কারো মনোনয়নপত্র বাতিল না করে প্রার্থীকে ডেকে এনে সংশোধন করিয়ে নেয়ার নির্দেশনা দেয়া হয়েছিল। তারা কেন সেটি করতে পারেননি, তা বলা যাচ্ছে না। তবে প্রার্থীরা আপিল করলে এসব কারণে রিটার্নিং কর্মকর্তার মনোনয়ন বাতিলের সিদ্ধান্ত টিকবে না। কর্মকর্তারা বলছেন, ইসি নির্দেশনা সঠিকভাবে না মানার কারণেই দশম সংসদ নির্বাচনের পূর্বে যেনতেন কারণে প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল হয়ে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিতদের সংখ্যা বেড়ে গিয়েছিল। অন্যথায় ১৫৩ আসনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় প্রার্থী নির্বাচিত হতো না। সে সময় নামের বানানের সামান্য ভুলের জন্যও মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছিল।

এ বিষয়ে নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার বলেন, আপিলে সবার প্রতি মেরিট দেখে সিদ্ধান্ত দেয়া হবে। কোনো প্রকার পক্ষপাত করা হবে না।

২ ডিসেম্বর মনোনয়নপত্র বাছাইয়ে ২ হাজার ২৭৯টি মনোনয়নপত্র বৈধ ও ৭৮৬টি বাতিল বলে ঘোষণা করেন সংশ্লিষ্ট রিটার্নিং কর্মকর্তারা। এগুলোর মধ্যে বিএনপির ১৪১টি, আওয়ামী লীগের ৩টি এবং জাতীয় পার্টির ৩৮টি মনোনয়নপত্র বাতিল হয়। আর স্বতন্ত্র প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে ৩৮৪টি। অবশ্য রিটার্নিং কর্মকর্তাদের বাতিলের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে এরই মধ্যে ৫৪৩ জন প্রার্থী নির্বাচন কমিশনে আপিল করেছেন। এর মধ্যে গতকাল বুধবার আপিলের শেষদিনে বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়াসহ ২২২টি আপিল আবেদন জমা পড়েছে। এর আগে প্রথম দিন ৩ ডিসেম্বর ৮৪টি এবং দ্বিতীয় দিন ৪ ডিসেম্বর ২৩৭টি আপিল আবেদন জমা পড়ে। এসব আপিলের শুনানি আজ বৃহস্পতিবার থেকে শুরু হবে।

এজন্য নির্বাচন ভবনের ১১ তলায় ট্রায়াল রুম তৈরি করা হয়েছে। প্রধান নির্বাচন কমিশনারসহ অন্য কমিশনার, নির্বাচন কমিশনের সচিব ও অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেটরা সেখানে উপস্থিত থাকবেন। আজ সকাল ১০টা থেকে শুনানি শুরু হবে বলে জানিয়েছেন ইসি কর্মকর্তারা। তারা জানান, শুনানিতে আপিলকারীরা তাদের আইনজীবী নিয়ে আসতে পারবেন। সেখানে আদালতের বেঞ্চের মতো করেই তারা মুভ করবেন। শুনানির প্রথম দিন আজ বৃহস্পতিবার ১ থেকে ১৬০, দ্বিতীয় দিন শুক্রবার ১৬১ থেকে ৩১০ এবং তৃতীয় দিন শনিবার ৩১১ থেকে ৫৪৩ ক্রমিকের আপিলের শুনানি হবে।

উল্লেখ্য, আগামী ৯ ডিসেম্বর মনোনয়ন প্রত্যাহারের শেষ দিন এবং ১০ ডিসেম্বর প্রতীক বরাদ্দ দেয়া হবে। আর ভোটগ্রহণ ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হবে।

মানবকণ্ঠ/এআর

Leave a Reply

Your email address will not be published.