আসছে ‘হাসিনা : এক কন্যার গল্প’

আসছে ‘হাসিনা : এক কন্যার গল্প’

এ ছবি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গল্প নয়, এ ছবি বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার গল্প। আমরা তাকে বহুবার দেখেছি, রাজনীতির মঞ্চে দেখেছি, হাসতে দেখেছি, কাঁদতে দেখেছি, মরতে মরতে বাঁচতে দেখেছি, মানুষের পাশে দেখেছি, মানুষকে তার পাশে দেখেছি, দেখেছি স্লোগানে বক্তৃতায় রাজপথে ভাষণে, দেখেছি গোটা জাতিকে মায়ের আঁচলে আগলে রাখা শাসনে। কিন্তু কখনো দেখিনি একান্ত নিভৃতে একা মানুষটাকে, একজন শেখ হাসিনাকে। এ মুভি সেই অদেখা মানুষটার অন্য জীবনের গল্প।

পিতা নেই, কিন্তু পাহাড় সমান পিতার স্বপ্ন আগলে রেখেছেন পরম যত্নে বছরের পর বছর ধরে, এদেশের প্রতিটা মানুষের সব আশার সবচেয়ে নির্ভরযোগ্য ভরসা হয়ে। আজ তিনি শুধু দেশ নয়, দেশের সীমানা পাড়িয়ে পুরো পৃথিবীতে মানবতার একজন সোচ্চার কণ্ঠস্বর-মাদার অব হিউম্যানিটি।

কিন্তু দিনশেষে যখন বারান্দায় ইজি চেয়ারে একটু হেলান দিয়ে নিশ্বাস নেন, সেই মানুষটাতো আমাদের মতোই ক্লান্ত পরিশ্রান্ত। আমরা তার গল্পটা কখনো জানিনা। তারও তো একটা গল্প আছে। কখন কি খান, কখন ঘুমান, ঘুমান তো। আর যখন ঘুম আসে না, তখন তিনি কি করেন? পরিবারের সবাইকে হারিয়ে একা এতগুলো দিন সেই ভীষণ ভারী কষ্টের বোঝা একা বয়ে চলেছেন যিনি, তারওতো একটা গল্প আছে।

এ গল্প সেই মানুষটার গল্প, যার বাবা শুধু একজন মানুষ ছিলেন না, যারা বাবা শুধু তার একার বাবা নন, ষোলো কোটি মানুষের বাবা, জাতির জনক। এই গল্প জাতির জনকের সেই কন্যার গল্প, ষোলো কোটি মানুষের ভালোবাসার বুবুর গল্প।

শেখ হাসিনার উপর নির্মিত এই ডকুমেন্টারি মুভিটি প্রযোজনা করেছেন সেন্টার ফর রিচার্স অ্যান্ড ইনফরমেশন, প্রযোজক হচ্ছেন রাদওয়ান মুজিব সিদ্দিক এবং নসরুল হামিদ বিপু। সিআরআই আর পরিচালনা করেছেন অ্যাপল বক্স ফিল্মস এর পিপলু খান। আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন একটি টিম এই মুভির পেছনে কাজ করেন। মুভিটির সঙ্গীতায়োজন করেন দেবজ্যোতি মিস্ত্র, সিনেমাটোগ্রাফিতে ছিলেন সাদিক আহমেদ এবং সম্পাদনা করেন নবনিতা সেন।

আগামী ১৫ নভেম্বর বসুন্ধরা সিটির স্টার সিনেপ্লেক্স-এ ‘শেখ হাসিনা – এ ডটার’স টেল’ সিনেমাটির প্রিমিয়ার শো অনুষ্ঠিত হবে এবং ১৬ নভেম্বর থেকে দেশের চারটি সিনেমা হলে সিনেমাটি একযোগে প্রদর্শিত হবে। হলগুলো হলো – বসুন্ধরা সিটির স্টার সিনেপ্লেক্স, যমুনা ফিউচার পার্কের ব্লকবাস্টার, মতিঝিলের মধুমিতা সিনেমা হল এবং চট্টগ্রামের সিলভার স্ক্রিনে।

মানবকণ্ঠ/এসএস