আশুলিয়ায় আজও পোশাক শ্রমিকদের বিক্ষোভ, সংঘর্ষে আহত ১০

নতুন মজুরি কাঠামো অনুযায়ী প্রতিশ্রুত মজুরি না দেয়া এবং মজুরি কাঠামোর পরিবর্তনের দাবিতে আজও পোশাক শ্রমিকদের বিক্ষোভ চলছে। রোববার আশুলিয়া ও সাভারে এ বিক্ষোভ করছেন শ্রমিকরা।

সকাল সাড়ে আটটার দিকে আশুলিয়ার জামগড়া ও নরসিংহপুরে শ্রমিকেরা রাস্তায় নেমে টায়ার পুড়িয়ে বিক্ষোভ করে। পুলিশের সঙ্গে শ্রমিকদের দফায় দফায় সংঘর্ষ হয়েছে। এতে আহত হয়েছে অন্তত ১০ জন শ্রমিক। বিক্ষোভের সময় শ্রমিকেরা বাসে ঢিল ছুড়ে মারেন। এতে কয়েকজন যাত্রী আহত হন।

এদিকে বিক্ষোভের কারণে আজ আবদুল্লাহপুর-বাইপাইল সড়কে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। পরে পুলিশ জলকামান, টিয়ারগ্যাস ব্যবহার করে শ্রমিকদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়। এ সময় প্রায় চার কিলোমিটার সড়কে ছড়িয়ে পড়ে সংঘর্ষ। বিক্ষোভ খানিকটা কমে এলে বেলা ১১টার দিকে যান চলাচল শুরু হয়।

শ্রমিকেরা জানান, নির্বাচনের আগে বেতন বৃদ্ধির ঘোষণা দিয়ে টাকা না দেওয়ায় শ্রমিকদের ক্ষোভ বেড়েছে। বেতন বাড়ার খবরেই জীবনযাত্রার খরচ বাড়ার দিকে বলে দাবি তাদের। যার কারণে অনেকে পেটের টানেও সড়কে নামছেন বলে জানিয়েছেন কয়েকজন।

গত এক সপ্তাহ ধরে আশুলিয়া ও সাভারের বিভিন্ন এলাকায় শ্রমিকেরা বিক্ষোভ করে আসছেন। এ ছাড়া রাজধানীর উত্তরা, মিরপুরসহ কয়েকটি এলাকায় শ্রমিক বিক্ষোভ হচ্ছে।

শিল্প পুলিশ-১-এর সুপার সানা শামিনুর রহমান জানান, এঘটনায় ৫০ টির মতো কারখানা বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।বিভিন্ন সড়ক ও কারখানার সামনে সামনে টহল দিচ্ছে পুলিশ ও বিজিবি।

গতকাল শনিবার আশুলিয়ায় রাস্তা আটকে বিক্ষোভ করেন কয়েক হাজার শ্রমিক। এ সময় সংঘর্ষ হয় দফায় দফায়। এদিন ঢাকার মিরপুর সরকারি বাঙলা কলেজের সামনে, টোলারবাগ, শেওড়াপাড়া ও মিরপুর-১৪ নম্বর এলাকায় সড়ক অবরোধ করেন শ্রমিকেরা। কয়েকটি গাড়িও ভাঙচুর করা হয়। কচুক্ষেত এলাকায় পোশাকমালিকেরা শ্রমিকদের বিক্ষোভে অংশ নিতে না দিলে কয়েকটি কারখানায় ভাঙচুরও করা হয়। দুপুরের দিকে পুলিশ পুরো চারটি স্থানেরই পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নেয়।

মানবকণ্ঠ/এএম

Leave a Reply

Your email address will not be published.