আমজাদ হোসেনের চিকিৎসার দায়িত্ব নিলেন প্রধানমন্ত্রী

আমজাদ হোসেনের চিকিৎসার দায়িত্ব নিলেন প্রধানমন্ত্রী

ব্রেইন স্ট্রোকে আক্রান্ত চলচ্চিত্র পরিচালক আমজাদ হোসেনের চিকিৎসার দায়িত্ব নিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। রোববার সকালে স্ট্রোক হওয়ার পর থেকে রাজধানীর তেজগাঁওয়ের ইমপালস হাসপাতালে ভর্তি করা হয় আমজাদ হোসেনকে। সেখানে লাইফ সাপোর্টে রাখা হয়েছে তাকে।

প্রধানমন্ত্রীর উপ-প্রেস সচিব আশরাফুল আলম খোকন সাংবাদিকদের জানান, মঙ্গলবার দুপুরে প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ে গিয়ে তার সঙ্গে দেখা করেন আমজাদ হোসেনের দুই ছেলে সাজ্জাদ হোসেন দুদুল ও সোহেল আরমান। এ সময় প্রধানমন্ত্রী এই চলচ্চিত্র পরিচালকের খোঁজ-খবর নেন এবং তার চিকিৎসার দায়িত্ব নেয়ার কথা জানান।

ইমপালস হাসপাতালের আইসিইউতে চিকিৎসক শহীদুল্লাহ সবুজের সার্বিক তত্ত্বাবধানে চিকিৎসা চলছে আমজাদ হোসেনের।

এর আগে হাসপাতালের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রের সিনিয়র মেডিকেল অফিসার মহিউদ্দিন মাজেদ চৌধুরী জানিয়েছিলেন, খ্যাতিমান এই পরিচালকের বড় ধরনের স্ট্রোক হয়েছে। তার মস্তিষ্কের রক্তনালী সংকুচিত হয়ে যাওয়ার বিষয়টি সিটি স্ক্যানের মাধ্যমে নির্ণয় করা হয়েছে। মাস ছয়েক আগেও থাইল্যান্ডের সুকুমভিত হাসপাতালে তার অস্ত্রোপচার করা হয়েছিল।

চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, আগে থেকেই বার্ধক্যজনিত কিছু জটিলতায় ভুগছিলেন আমজাদ হোসেন। কিডনি ও হার্টে সমস্যা রয়েছে তার।

১৯৪২ সালের ১৪ আগস্ট জামালপুরে জন্ম নেয়া আমজাদ হোসেন চিত্র পরিচালনার বাইরে লেখক, অভিনেতা হিসেবেও পরিচিত। ১৯৬১ সালে ‘হারানো দিন’ চলচ্চিত্রে অভিনয়ের মধ্য দিয়ে রুপালি পর্দায় তার আগমন। পরে অবশ্য চিত্রনাট্য রচনা ও পরিচালনায় মনোনিবেশ করেন।

১৯৬৭ সালে মুক্তি পায় তার পরিচালিত প্রথম চলচ্চিত্র ‘খেলা’। তার ‘ভাত দে’, ‘গোলাপী এখন ট্রেনে’সহ বেশ কয়েকটি চলচ্চিত্রও দর্শক ও বোদ্ধামহলের প্রশংসা পেয়েছে।

গান লেখায়, চিত্রনাট্যে ও পরিচালনায় চারবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেয়েছেন তিনি। এ ছাড়া একুশে পদক ও স্বাধীনতা পুরস্কারেও ভূষিত হয়েছেন।

মানবকণ্ঠ/এসএস