আবাসিক পাখি ল্যাঞ্জা হরিয়াল

আবাসিক পাখি ল্যাঞ্জা হরিয়াল

বিরল দর্শন, আবাসিক পাখি। গড়ন কবুতরের মতো। সুদর্শন। যত্রতত্র দেখা যাওয়ার নজির নেই। দেখা মেলে উঁচু গাছের চিরসবুজ বনের পত্রপল্লবের আড়ালে। ঝাঁক বেঁধে বিচরণ করে। বিচরণ করে ছোট কিংবা বড় দলেও। ভোরের দিকে পাতাঝরা গাছের মগডালে বসে রোদ পোহাতে দেখা যায়। বৃক্ষচারী এ পাখিরা জলপান ব্যতিরেকে মাটিতে নামে না খুব একটা। স্বভাবে শান্ত। গায়ে পড়ে স্বগোত্রীয় বা অন্য গোত্রীয় কারো সঙ্গে ঝগড়ায় লিপ্ত হয় না। প্রজনন ঋতুতে সুরেলা কণ্ঠে গান করে ‘কো-ক্লা-অই-অই-অইলি-ইলিও-ক্লা’। সুর শুনতে মন্দ নয়।

প্রজাতিটি শুধু বাংলাদেশই নয়, দেখা যায় ভারত, নেপাল, ভুটান, মিয়ানমার, চীন, লাওস, থাইল্যান্ড, কম্বোডিয়া ও ভিয়েতনামে। সমগ্র বিশ্বে এদের বিস্তৃতি ১৬ লাখ ৩০ হাজার বর্গকিলোমিটারব্যাপী। সংখ্যায় স্থিতিশীল বিধায় আইইউসিএন প্রজাতিটিকে ন্যূনতম বিপদগ্রস্ত হিসেবে ঘোষণা করেছে। তবে বাংলাদেশের বন্যপ্রাণী আইনে প্রজাতিটি সংরক্ষিত নয়। একসময়ে দেশের সৌখিন শিকারি দ্বারা ব্যাপক নির্যাতিত হওয়ার ফলে এবং উঁচু গাছের অভাবে এদের সংখ্যা দ্রুত হ্রাস পেয়েছে বলে অভিমত পাখি বিশারদদের। ফলে এরা বিরল থেকে বিরলতম হয়ে উঠছে।

পাখির বাংলা নাম: ‘ল্যাঞ্জা হরিয়াল’, ইংরেজি নাম: ‘পিন-টেইলড গ্রিন পিজিয়ন’ (Pin-tailed Green Pigeon), বৈজ্ঞানিক নাম: Treron apicauda। এরা ‘হরিয়াল বা হরিকল’ নামেও পরিচিত।

লেজসহ প্রজাতির গড় দৈর্ঘ্য লম্বায় ৪১-৪৩ সেন্টিমিটার। পুরুষ পাখির লেজ দীর্ঘ সুঁচালো। ওজন ২১৫ গ্রাম। মাথা সবুজাভ হলুদ। গলাবন্ধের রঙ সবুজাভ-জলপাইয়ের সঙ্গে সবুজ মিশ্রিত। ঘাড় ও পিঠের মাঝ বরাবর ধূসরাভ। ডানার ওপরে বিভিন্ন ঘনত্বের হলুদাভ পট্টি, প্রান্ত কালো। বুক হালকা কমলা। লেজের নিচের দিকটা লালচে। চোখ লাল। ঠোঁটের ওপরের অংশ সবুজ, নিচের অংশ নীলচে। পা ও পায়ের পাতা উজ্জ্বল লাল। অপরদিকে স্ত্রী পাখির লেজ খাটো। দেহের বর্ণ অনুজ্জ্বল। গলাবন্ধ নেই। বুকের কমলা রং অনুপস্থিত।

প্রধান খাবার: বট-পাকুড় ফল। এ ছাড়াও অন্য ছোট ফল-ফলাদি খায়।

প্রজনন সময় এপ্রিল থেকে জুন। গাছের পত্রপল্লবের আড়ালে লতাপাতা, চিকন কাঠি দিয়ে বাসা বাঁধে। ডিম পাড়ে ২টি। ফুটতে সময় লাগে ১৬-১৮ দিন।
লেখক: আলম শাইন, কথাসাহিত্যিক, কলামিস্ট ও বন্যপ্রাণী বিশারদ। [email protected]

মানবকণ্ঠ/এসএস