আন্তর্জাতিক পণ্য গ্যাফেল নিয়ে উদ্যোক্তা শাকিল মাহমুদ

আন্তর্জাতিক পণ্য গ্যাফল নিয়ে উদ্যোক্তা শাকিল মাহমুদ

তরুণ উদ্যোক্তা শাকিল মাহমুদ। এগিয়ে চলেছেন একের পর এক সফল উদ্যোগ নিয়ে। ২০১৭ সালের ১ এপ্রিলে তিনি এবং তার সহপ্রতিষ্ঠাতাদের নিয়ে শুরু করেন ফ্রিল্যান্সিং ইন্সটিটিউট ‘শিখবে সবাই’। দেশের বেকার যুব সমাজকে প্রাক্টিক্যাল স্কিল নির্ভর এবং পরসোনাল ভেডেলমেন্ট শিক্ষা প্রদানের মাধ্যমে কর্মদক্ষ এবং বিশ্বমানের ফ্রিল্যান্সার তৈরি করাই ছিল প্রতিষ্ঠানটির মূল লক্ষ্য।

প্রতিষ্ঠানটির যাত্রা খুব বেশি সময়ের না হলেও খুব অল্প সময়েই অনেকগুলো মাইলফলক অর্জন করে। প্রায় দুই বছরের যাত্রাতে ৩ হাজার ৫০০ ফ্রিল্যান্সার তৈরি করেছেন তারা এবং করেছেন সনদপত্র বিতরণ।

দেশিও বাজারে ফ্রিল্যান্সিং ক্ষেত্রে দৃষ্টান্তমূলক প্রতিষ্ঠান স্থাপন করার পর এই উদ্যোক্তা এবার বিশ্বব্যাপী ভ্রমণ অঙ্গনে নতুন পণ্য নিয়ে কাজ শুরু করেছেন। বিশ্বব্যাপী ভ্রমণ পিপাসুদের যুক্ত করার মাধ্যমে ভ্রমণ খরচ এবং অভিজ্ঞতা শেয়ার করা, ভ্রমণকে আরো বেশি সহজ ও সাশ্রয়ী করার লক্ষ্যে তৈরি করেছেন গ্যাফেল (জিএএফএফএল)। ২০১৭ সালের শেষের দিকে তিনি এবং তার সহপ্রতিষ্ঠাতা বাল্যবন্ধু আকিব আমিন দুইজন শুরু করেছেন গ্যাফেলের কার্যক্রম।

প্রতিষ্ঠানটি এখন সম্পূর্ণভাবে আমেরিকার ওহিয়ো স্টেটের টলেডো শহরে পরিচালিত হচ্ছে। সম্প্রতি বাংলাদেশে প্রতিষ্ঠানটির একটি ব্রাঞ্চ কার্যক্রম শুরু হয়েছে। যেখানে প্রডাক্ট ডেভেলমেন্ট এবং মার্কেটিং সেক্টরে কাজ করবেন বাংলাদেশি দক্ষ টিম। বাংলাদেশি মানুষ দিয়ে আন্তর্জাতিক মানের পণ্য এবং সার্ভিস দেয়া সম্ভব বলেই আশাবাদী তরুণ উদ্যোক্তা শাকিল মাহমুদ।

গ্যাফেল বিশ্বব্যাপী ব্যবহার উপযোগী একটি সেবা হলেও এখন পর্যন্ত পূর্ণরুপে চালু হয়েছে অস্ট্রেলিয়া, আমেরিকা এবং ইউরোপের কয়েকটি দেশে এরইমধ্যে ইউএস, অস্ট্রেলিয়া এবং ইউরোপ থেকে পণ্যটি ব্যবহার করছেন প্রায় ৫০ হাজার ট্রাভেলার।

উদ্যোক্তা শাকিল মাহমুদ জানান, আমি ধীরে ধীরে এগিয়ে যাওয়াতে বিশ্বাসী। গ্যাফেলের যাত্রা মাত্র শুরু। পণ্যটি আরো বেশি পারফেক্ট এবং ব্যবহার উপযোগী করে তুলতে দিন-রাত কাজ করছে গ্যাফেল টিম। খুব দ্রুত মার্কেট ক্যাপচারে প্রসার করার থেকে বাজারের চাহিদা বুঝে পণ্যের স্ট্রেন্থ বানানোর সঙ্গে সঙ্গে এগিয়ে যাওয়াটা গুরুত্বপূর্ণ বলে তিনি মনে করেন।

অদূর ভবিষ্যতে, সারাবিশ্বের সবদেশে গ্যাফেল সম্পূর্ণভাবে এবং সফলভাবে চালু করা আমাদের মূল লক্ষ্য। ভারত এবং চায়না একটি বড় বাজার হতে পারে আমাদের জন্য এবং আমরা সেটির প্রস্তুতিই নিচ্ছি।

শিখবে সবাইয়ে সময় দিতে পারেন কি না জানতে চাইলে তরুণ উদ্যোক্তা শাকিল মাহমুদ বলেন, শিখবে সবাইয়ের সিইও হিসাবে টোটাল অপারেশনের দায়িত্বে এখন আছেন রিফাত এম হক। আর আমার এখন চেয়ারম্যান এবং ম্যানেজিং ডিরেক্টর হিসাবে মেজর ডিসিশন মেকিং, ফান্ড রাইজিং এবং ফিন্যাশিয়াল পার্টটাতে বেশি ইনভল্ব থাকা হয়।

বিশ্বের সব নতুন নতুন সমস্যা এবং তার সমাধান নিয়ে কাজ করতে ভালোবাসেন এই উদ্যোক্তা। সেসঙ্গে যারা তার মতো বিভিন্ন সমস্যা নিয়ে উদ্যোক্তা হয়ে কাজ করছেন বা করতে চান তাদের নিরলস অনুপ্রেরণা এবং সহযোগিতা করতে চান তিনি। যে কেউ পরামর্শ বা সহযোগিতার জন্য যুক্ত থাকতে পারেন তার ফেসবুক পেজ facebook.com/helloshakilm এর মাধ্যমে।

মানবকণ্ঠ/এসএস