অবশেষে ভারতীয় পাইলট অভিনন্দনকে ফেরত দিল পাকিস্তান

অবশেষে আটক পাইলট অভিনন্দন বর্তমানকে ভারতের কাছে ফেরত দিল পাকিস্তান। শুক্রবার বিকেল সাড়ে চারটার পর ওয়াগা সীমান্তে কুটনৈতিক আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন হওয়ার পরই ভারতের হাতে তুলে দেয়া হয় অভিনন্দনকে। খবর ডন ও আনন্দবাজারের।

এর আগে পাকিস্তান সেনাবাহিনীর একটি কনভয়ে ওয়াগা সীমান্তে নিয়ে আসা হয় অভিনন্দনকে। ভারতীয় বাহিনীর কাছে হস্তান্তরের আগে অভিনন্দনের মেডিকেল চেকআপ করে পাক বাহিনীর মেডিকেল টিম।

এদিনে সকালে প্রথমে ইসলামাবাদ থেকে লাহোরে সড়ক পথে নিয়ে আসা হয়। সেখান থেকে বিকাল সাড়ে চারটার দিকে আনা হয় ওয়াগা-আতারি সীমান্তে। অভিনন্দনকে স্বাগত জানাতে এয়ার ভাইস মার্শাল আর জি কে কপূরসহ সেনা ও এয়ারফোর্সের শীর্ষ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। সকালেই সীমান্তে পৌঁছে যান অভিনন্দনের বাবা এয়ার মার্শাল এস বর্তমান এবং মা শোভা বর্তমান। শুক্রবার সকালে ইসলামাবাদে নিযুক্ত ভারতীয় হাইকমিশনার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে যান। সেখানে যাবতীয় কুটনৈতিক আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন হয়।

এর আগে অভিনন্দনের জন্য একটি বিশেষ ফ্লাইট পাঠাতে চেয়েছিল ভারত। কিন্তু পাকিস্তানের তরফ থেকে তা প্রত্যাখ্যান করা হয়। পাকিস্তান জানিয়েছিল- তারা সড়কপথেই অভিনন্দনকে ফেরত পাঠাবে।

এদিকে ভারতের সীমান্ত এলাকায় অভিনন্দনকে বরণ করে নিতে হাজারো ভারতীয় জড়ো হয়েছেন। ভারতের তিন বাহিনীর কর্মকর্তাদের পাশাপাশি সাধারণ মানুষও যোগ দিয়েছেন এই আনন্দ উৎসবে।

এর আগে বৃহস্পতিবার পাকিস্তানের পার্লামেন্টে যৌথ অধিবেশনে শান্তির ইঙ্গিত হিসেবে ওই পাইলটকে মুক্তির ঘোষণা দিয়েছিলেন পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান।

গত বুধবার কাশ্মীরে অনুপ্রবেশের অভিযোগে গুলি চালিয়ে ভারতীয় দুটি যুদ্ধবিমান ভূপাতিত করে পাকিস্তান। এর মধ্যে পাক অধিকৃত কাশ্মীরে একটি এবং অপরটি ভারতে ভূপাতিত হয়। পাক-কাশ্মীরে ভূপাতিত হওয়ার পর উত্তেজিত জনতার হাত থেকে ভারতীয় ওই পাইলটকে উদ্ধার করে পাকিস্তান সেনাবাহিনী।

প্রসঙ্গত, গত ১৪ ফেব্রুয়ারি ভারতনিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরের পুলওয়ামায় আত্মঘাতী গাড়িবোমা বিস্ফোরণে ভারতের ৪৪ সেনা নিহত হন। পাকিস্তানভিত্তিক জঙ্গি সংগঠন জইশ-ই-মোহম্মদ এ হামলার দায় স্বীকার করে। এর পরই প্রতিবেশী দুই দেশের মধ্যে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে।

মানবকণ্ঠ/এএম