অনলাইন মার্কেটপ্লেস ‘বিক্রয়ের’ এগিয়ে চলা

অনলাইন মার্কেটপ্লেস ‘বিক্রয়ের’ এগিয়ে চলা

নগরজীবনের ব্যস্ততায় একান্ত জরুরি প্রয়োজন ছাড়া কেনাবেচার জন্য সময় বের করা যেন রীতিমত যুদ্ধ জয়ের কাজ। এই ব্যস্ত জীবনযাপনে অনেকটাই স্বস্তি এনে দিয়েছে অনলাইন মার্কেটপ্লেস। কেবল ইন্টারনেট সংযোগ ও একটি মোবাইল ফোনই সহজ করে দিচ্ছে ক্রেতা-বিক্রেতার জীবনাচরণ- কি পণ্য বিক্রি, কি পণ্য কেনা।

তবে, আজ আমরা নানাবিধ সেবা ও সুবিধাসমেত যেসব অনলাইন মার্কেটপ্লেস এর সুবিধা নিতে পারছি সেটি কিন্তু রাতারাতি হয়ে ওঠেনি। এর জন্য অপেক্ষা করতে হয়েছে ছয় বছরেরও বেশি সময়। বিগত প্রায় ছয় বছর ধরে তিলে তিলে সমৃদ্ধ হয়েছে বাংলাদেশের অনলাইন মার্কেটপ্লেস। ডয়েচে ভেলে-এর এক প্রতিবেদন বলছে, বাংলাদেশে এখন বছরে এক হাজার কোটি টাকার পণ্য বিক্রি হয় অনলাইনে। আর প্রতিদিন অনলাইনে ডেলিভারি দেয়া হয় ২০ হাজার অর্ডার। সঙ্গত কারণেই বাংলাদেশে এ মাধ্যমের চাহিদা দিনদিন বেড়েই চলেছে। কিন্তু সম্প্রতি, একটি শ্রেণিবদ্ধ বিজ্ঞাপনের ওয়েবসাইট এবং একটি আইটি সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান বন্ধ হওয়ার কারণে বাংলাদেশে অনলাইন মার্কেটের ভবিষ্যত নিয়ে কেউ কেউ আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন। এই আশঙ্কা থেকে গেছে, যেটি শুরু থেকেই ছিলো। বিশেষ করে মুক্ত বাজার হওয়ায় ক্রেতা ও বিক্রেতারা নিজেদের সুবিধামতো কার্যক্রম পরিচালনা করতেন। এতে যেকোনো এক পক্ষের প্রতারিত হওয়ার সুযোগ থেকে গেছে। এমন অভিযোগ বিভিন্ন মার্কেটপ্লেসগুলোর বিরুদ্ধে হরহামেশাই এসেছে। নানা কারণে বন্ধ হয়েছে বিভিন্ন নামী অনলাইন মার্কেটপ্লেস। কয়েক বছর আগে অন্য আরেকটি মার্কেটপ্লেস এখানেই ডট কম তাদের কর্মকাণ্ড বন্ধ করে দেয়।

বর্তমানে বাংলাদেশে অনলাইন মার্কেটপ্লেস হিসেবে গ্রাহকদের নানাবিধ সুবিধা দিয়ে যাচ্ছে সবচেয়ে বড় মার্কেটপ্লেস বিক্রয়ডটকম। এছাড়াও বাজারে রয়েছে সেল বাজার ডট কম, পিবাজার ডট কম, আপনার ডিল ডট কম, হাটবাজার ডট কম, ক্লিক বিডি এবং ক্রয়-বিক্রয় ডট কম নামের অনলাইন মার্কেটপ্লেস। তবে, গ্রাহকপ্রিয়তা ও মার্কেট শেয়ারের দিক দিয়ে বিক্রয় ডট কম-ই শীর্ষে অবস্থান করছে। সম্প্রতি, সোমরা-এমবিএল ১ হাজার জন ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর ওপর একটি জরিপ চালায় যেখানে দেখা যায়, বাংলাদেশে ফেসবুক, গুগল এবং ইউটিউবের পরেই অবস্থান করছে বিক্রয় ডট কম। স্থানীয় সকল ওয়েবসাইটের মধ্যে ইনস্টাগ্রাম, টুইটার ও লিংকড ইনের মতো ওয়েবসাইটগুলোকে ছাড়িয়ে দেশের সিংহভাগ মানুষের টপ অব মাইন্ডের চতুর্থ অবস্থানে আছে বিক্রয় ডট কম। বিক্রয় ডট কম এ প্রতি মাসে প্রায় ২৫ লাখ নতুন ভিজিট হয়। একজন ইউজার গড়ে প্রায় ১১ মিনিট সময় ব্যয় করেন এই ওয়েবসাইটে। এর বাউন্স রেট প্রায় ১৯%, অর্থাৎ প্রায় ৮১% ব্যবহারকারী ওয়েবসাইট কন্টেন্টের সঙ্গে যুক্ত থাকে এবং প্রাথমিক সার্চে তারা পণ্য বা সেবাসমূহ পেয়ে থাকেন।

কিন্তু কেন মানুষ বিক্রয় ডট কম ভিজিট করেন? রাজধানীর সিদ্বেশ্বরী এলাকার বিক্রয় ডট কমের একজন নিয়মিত ভিজিটর নাসরীন পাশা জানান, ‘বিক্রয় ডট কম এমন একটি সাইট যেখানে একটি প্ল্যাটফর্মে এসে অনেকগুলো চাহিদা পূরণ করা সম্ভব হয়। তবে, আমি জবস ও ভেহিকেলস – এই দুটি অংশে বেশি ভিজিট করি।’

গ্রাহকদের জন্য বিক্রয় ডট কম তাদের সেবাসমূহকে চারটি বড় সেগমেন্টে বা ক্যাটাগরিতে ভাগ করেছে। এগুলো হচ্ছে মার্কেটপ্লেস, ভেহিকেলস, প্রপার্টি ও জবস। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি ভিজিটর ও বিজ্ঞাপন রয়েছে মার্কেটপ্লেস ক্যাটাগরিতে। ২০১৮ সালে এই ক্যাটাগরিতে বিক্রয়ের সাইটে ২০ লাখেরও বেশি বিজ্ঞাপন পোস্ট হয়। এই ক্যাটাগরির সবচেয়ে জনপ্রিয় সাব-ক্যাটাগরি হচ্ছে মোবাইল ও ইলেকট্রনিক্স এবং সবচেয়ে বেশি সার্চ করা হয়েছে মোবাইল ও ল্যাপটপ। ভেহিকেলস ক্যাটাগরিতে গত বছরে প্রায় তিন লাখ ভিজিটর দুই লাখেরও বেশি বিজ্ঞাপন পোস্ট করেন। এর সবচেয়ে জনপ্রিয় সাব-ক্যাটাগরি হচ্ছে গাড়ি, মোটরবাইক ও স্কুটার এবং সবচেয়ে বেশি সার্চ করা হয়েছে গাড়ি। এই ক্যাটাগরিতে সবচেয়ে প্রসিদ্ধ ও জনপ্রিয় ব্র্যান্ডের গাড়ি ও বাইকের বিজ্ঞাপন রয়েছে। অন্যদিকে প্রপার্টি কেনাবেচার বিশ্বস্ত মাধ্যম হিসেবে পরিণত হয়েছে বিক্রয়ের প্রপার্টি ক্যাটাগরি। বিগত সালে এই ক্যাটাগরিতে বিশ্বস্ত প্রপার্টি কোম্পানির প্রায় দেড় লাখ অ্যাড পোস্ট করা হয়। এই ক্যাটাগরির সবচেয়ে বেশি সার্চ করা সাব-ক্যাটাগরি হচ্ছে ফ্ল্যাট ও অ্যাপার্টমেন্ট। বিক্রয় এর সবশেষ ও উদীয়মান ক্যাটাগরি হচ্ছে জবস। বাংলাদেশের প্রসিদ্ধ কোম্পানির চাকরির বিজ্ঞাপনের জন্য ভিজিটররা বিক্রয়ের এই ক্যাটাগরি ভিজিট করেন।

শুধু কি এইসব ক্যাটাগরির জন্যই এতো ভিজিটর বিক্রয়-এর? জানতে চাইলে বিক্রয় ডটকম-এর হেড অব মার্কেটিং অ্যান্ড অ্যাড সেলস ঈশিতা শারমিন বলেন, ‘বিক্রয় ডট কম সবসময় সকল স্তরের গ্রাহকদের জন্য সুবিধাজনক সেবার নিশ্চয়তা দিয়ে থাকে। বিক্রয় ডট কম-এ আমরা সাইটটিকে এমনভাবে সাজিয়েছি যাতে করে একজন বিক্রেতা সহজেই বিজ্ঞাপন প্রদান করতে পারেন এবং ক্রেতারা প্রয়োজনীয় সেবা সেবাসমূহ নিজেদের সুবিধা অনুযায়ী গ্রহণ করতে পারেন। এছাড়াও ক্রেতা-বিক্রেতারা এখানে সম্ভাব্য চাহিদানুযায়ী পরামর্শও পেয়ে থাকেন। বিক্রেতাদের জন্য মেম্বারশিপ সুবিধা, ক্রেতাদের দোরগোড়ায় পণ্য বা সেবা পৌঁছে দেয়া, নিরাপদ বেচাকেনা নিশ্চিত করাসহ নানামুখী গ্রাহক উপযোগী সেবার কারণে জনপ্রিয়তার শীর্ষে পৌঁছেছে বিক্রয় ডট কম।’

মানবকণ্ঠ/এসএস