শিরোনাম :
ইসি গঠনে রাষ্ট্রপতির সংলাপ : আইন প্রণয়ন, ই-ভোটিংসহ চার প্রস্তাব আওয়ামী লীগের
Published : Thursday, 12 January, 2017 at 12:00 AM
নিজস্ব প্রতিবেদক
ইসি গঠনে রাষ্ট্রপতির সংলাপ : আইন প্রণয়ন, ই-ভোটিংসহ চার প্রস্তাব আওয়ামী লীগেরনির্বাচন কমিশন (ইসি) গঠনে এখনই একটি আইন প্রণয়ন অথবা অধ্যাদেশ জারি ও আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ই-ভোটিং প্রবর্তনসহ রাষ্ট্রপতিকে চার দফা প্রস্তাব দিয়েছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। গতকাল বুধবার সন্ধ্যায় আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের ধানমণ্ডিস্থ দলের সভাপতি শেখ হাসিনার রাজনৈতিক কার্যালয়ে রাষ্ট্রপতির সঙ্গে সংলাপ শেষে এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা জানিয়েছেন।
প্রস্তাবগুলো হচ্ছে, সংবিধানের অনুচ্ছেদ ১১৮-এর বিধান অনুযায়ী রাষ্ট্রপতি প্রধান নির্বাচন কর্মকর্তা ও অন্য কমিশনারদের নিয়োগ দেবেন। প্রধান নির্বাচন কর্মকর্তা ও অন্য কমিশনারদের নিয়োগের ক্ষেত্রে রাষ্ট্রপতি যা উপযুক্ত বিবেচনা করবেন, সে প্রক্রিয়ায় তিনি নির্বাচন কমিশনারদের নিয়োগ দেবেন। প্রধান নির্বাচন কর্মকর্তা ও অন্য কমিশনারদের নিয়োগের লক্ষ্যে সম্ভব হলে এখনই একটি উপযুক্ত আইন প্রণয়ন অথবা অধ্যাদেশ জারি করা যেতে পারে। সময় স্বল্পতার কারণে ইসি পুনর্গঠনের ক্ষেত্রে তা সম্ভব না হলে পরবর্তী নির্বাচন কমিশন গঠনের সময় যেন এর বাস্তবায়ন সম্ভব হয়, সংবিধানের নির্দেশনার আলোকে এখন থেকেই সেই উদ্যোগ গ্রহণ করা যেতে পারে।
অন্য প্রস্তাবটি হলো, অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের জন্য বিরাজমান সব বিধি-বিধানের সঙ্গে জনগণের ভোটাধিকার অধিকতর সুনিশ্চিত করার স্বার্থে আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ই-ভোটিং চালু করা।
এর আগে বিকেলে বঙ্গভবনে এই সংলাপ অনুষ্ঠিত হয়। সংলাপে আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দলের ১৯ সদস্যের প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দেন। এ সময় দলটির পক্ষ থেকে নির্বাচন কমিশন গঠনে এ চার দফা প্রস্তাব তুলে ধরা হয়। বিকেল ৪টায় আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা বঙ্গভবনে পৌঁছলে রাষ্ট্রপতি তাকে স্বাগত জানান। প্রধানমন্ত্রীর আগমনের আগেই প্রতিনিধি দলের বাকি সদস্যরা বঙ্গভবনে পৌঁছেন।
প্রধানমন্ত্রীকে সঙ্গে নিয়ে রাষ্ট্রপতি বঙ্গভবনের দরবার হলে পৌঁছানোর পর বিকেল ৪টা ৫ মিনিটে আলোচনা শুরু হয়। শুরুতে রাষ্ট্রপতি আওয়ামী লীগ প্রতিনিধি দলকে স্বাগত জানান এবং প্রধানমন্ত্রী তাকে ধন্যবাদ দেন।
আওয়ামী লীগের প্রতিনিধি দলে উপস্থিত ছিলেন দলের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য আমির হোসেন আমু, তোফায়েল আহমেদ, সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত, আবুল মাল আবদুল মুহিত, এইচ টি ইমাম, অ্যাডভোকেট ইউসুফ হোসেন হুমায়ুন, মোহাম্মদ জমির, সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের, সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য মোহাম্মদ নাসিম, বেগম মতিয়া চৌধুরী, অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুন ও সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম এবং যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ডা. দীপু মনি ও অ্যাডভোকেট জাহাঙ্গীর কবির নানক, দফতর সম্পাদক ড. আবদুস সোবহান গোলাপ, আইনবিষয়ক সম্পাদক আবদুল মতিন খসরু, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ ও আইনমন্ত্রী আনিসুল হক।
বিএনপির সঙ্গে আলোচনা মধ্য দিয়ে গত ১৮ ডিসেম্বর রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে সংলাপ শুরু করেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ।
রাষ্ট্রপতির ন্যায়সঙ্গত উদ্যোগে পূর্ণ সমর্থন থাকবে আওয়ামী লীগের: আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, নির্বাচন কমিশন (ইসি) পুনর্গঠনে রাষ্ট্রপতির যে কোনো ন্যায়সঙ্গত উদ্যোগে আওয়ামী লীগের পূর্ণ আস্থা থাকবে। তিনি বলেন, ‘আওয়ামী লীগ বাংলাদেশের সংবিধান ও বিরাজমান সব আইন-কানুনের ওপর শ্রদ্ধাশীল। রাষ্ট্রপতির সুদীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনের সুগভীর প্রজ্ঞা ও সুবিবেচনার প্রতি আওয়ামী লীগের পরিপূর্ণ আস্থা ও বিশ্বাস রয়েছে। নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠনে রাষ্ট্রপতি গৃহীত যে কোনো ন্যায়সঙ্গত উদ্যোগের প্রতি এই দলের পরিপূর্ণ সমর্থন থাকবে।’
ওবায়দুল কাদের সংবাদ সম্মেলনে বলেন, রাষ্ট্রপতির সঙ্গে আওয়ামী লীগ প্রতিনিধি দলের আলোচনা খুবই ফলপ্রসূ হয়েছে। তিনি বলেন, আমরা আমাদের প্রস্তাবনা রাষ্ট্রপতির কাছে উপস্থাপন করেছি। আমাদের প্রস্তাব গ্রহণ করা বা না করার সম্পূর্ণ এখতিয়ার রাষ্ট্রপতির। যা ভালো মনে হয় তিনি তাই করবেন।
নির্বাচন কমিশন গঠনে আইন প্রণয়ের বিষয়ে তিনি বলেন, রাষ্ট্রপতির কাছে প্রস্তাব দেয়া হয়েছে, সময় স্বল্পতার কারণে আগামী নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠনের ক্ষেত্রে তা সম্ভব না হলে পরবর্তী নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠনের সময় যেন এর বাস্তবায়ন করা সম্ভব হয়।
নির্বাচন কমিশন গঠন নিয়ে সব দলের সঙ্গে ঐকমত্য হওয়ার বিষয়ে আপনারা কতটুকু আশাবাদী এমন প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, সালিশ মানেই তালগাছটা আমার, এমন মানসিকতা নিয়ে কেউ বসে আছে কি-না আমরা তো তা এখন বলতে পারছি না। তবে উই আর হোপিং দ্য বেস্ট (আমরা ভালো কিছু আশা করছি)।
সার্চ কমিটি গঠনের প্রসঙ্গে জানতে চাইলে তিনি বলেন, সার্চ কমিটি গঠন রাষ্ট্রপতির এখতিয়ার।
আওয়ামী লীগের প্রস্তাব প্রসঙ্গে রাষ্ট্রপতি কোনো অভিমত দিয়েছেন কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, রাষ্ট্রপতি যা করবেন সংবিধানের আলোকেই করবেন। তিনি তো এখন কোনো রি-অ্যাকশন দেখাবেন না। আমরা বুঝতে পারলাম তিনি (রাষ্ট্রপতি) হয়তো আরো কয়েকটি দলের সঙ্গে আলোচনা করবেন। তিনি সব দলের প্রস্তাব মিলিয়ে একটা বিবেচনায় আনবেন।    
ইলেকট্রনিক ভোটিং প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদ সদস্য এইচ টি ইমাম বলেন, ইভিএম আমাদের একবার ব্যবহার করা হয়েছিল। নতুন প্রযুক্তি ব্যবহার করে এটা ব্যবহার করার প্রক্রিয়া নিয়ে নির্বাচন কমিশন কাজ করছে। আমরা নির্বাচন কমিশনের সঙ্গে আলোচনা করে বুঝতে পেরেছি যে, ইভিএম আমাদের দেশে ব্যবহার করা যেতে পারে। সে জন্য আমরা এই প্রস্তাব দিয়েছি। ইভিএমে নির্বাচন অনেক স্বচ্ছ হয়, গ্রহণযোগ্য এবং নিরেপক্ষতা নিয়ে প্রশ্নই ওঠে না।







প্রথম পাতা'র আরও খবর

অ্যাপস ও ফিড
সামাজিক নেটওয়ার্ক
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আনিস আলমগীর
প্রকাশক : জাকারিয়া চৌধুরী
রোড -১৩৮, প্লট - ১/এ, গুলশান-১, ঢাকা-১২১২
ফোনঃ +৮৮-০২-৫৫০৪৪৯৪৩-৫, ফ্যাক্সঃ +৮৮-০২-৫৫০৪৪৯৪৮
ই-মেইল : info@manobkantha.com, mkonlinedesk@gmail.com
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । মানবকণ্ঠে প্রকাশিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র ও অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি।
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আনিস আলমগীর, প্রকাশক : জাকারিয়া চৌধুরী
রোড -১৩৮, প্লট - ১/এ, গুলশান-১, ঢাকা-১২১২ ফোনঃ +৮৮-০২-৫৫০৪৪৯৪৩-৫, ফ্যাক্সঃ +৮৮-০২-৫৫০৪৪৯৪৮
ই-মেইল : info@manobkantha.com, mkonlinedesk@gmail.com