শিরোনাম :
ঘরের সাজে অস্থায়ী দেয়াল
স্বরলিপি
Published : Monday, 9 January, 2017 at 10:55 AM, Update: 09.01.2017 4:50:43 PM
ঘরের সাজে অস্থায়ী দেয়ালদিন শেষে একটু শান্তির জন্য যেখানে ফেরা হয়, তার নাম ঘর। ঘর মানেই নির্ভরতা.. ঘর মানে নিজের ইচ্ছেমতো সাজিয়ে রাখা চারপাশ। আর একারণেই এখানেও একটু আড়াল রাখা চাই! আড়াল রাখা ভালোও বটে। ভাবুন তো কি কি আড়াল রাখা যায়? ভালোলাগাকে, ভালোবাসাকে আর এক রুম থেকে অন্যরুমকেও। সেজন্য প্রয়োজন একটু আড়াল কিংবা অস্থায়ী পার্টিশন। যে পার্টিশন চাইলেই এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় নেয়া যায়। আবার প্রয়োজনে ভাঁজ করেও রেখে দেয়া যায় সেটাই হলো পার্টিশন।

জমকালো ও ভারি নকশার পার্টিশন ভেতরের ঘরে না রাখাই ভালো। আর হ্যাঁ, ছোট ঘরে একাধিক পার্টিশন ঘরের সৌন্দর্য নষ্ট হতে পারে।

কোথায় কেমন পার্টিশন দিলে ভালো হয়, সে বিষয়ে পরামর্শ দিয়েছেন ; গুলশান নাসরিন চৌধুরী, ইন্টেরিয়র ডিজাইনার রেডিয়েন্ট ইনস্টিটিউট অব ডিজাইন।
শোবার ঘরের পার্টিশন হিসেবে বেতের দেয়ালটা বেশ চলছে। আপনিও বেছে নিতে পারেন এটি। আর যদি জোয়ারে গা ভাসাতে না চান, তো বিকল্প দেখুন- বাঁশ, কাঠ, প্লাস্টিক, কাচের তৈরি দেয়ালের মধ্যেই। ডিজাইন বুঝে ইনডোর প্লান্ট বা শো পিস দিয়ে সাজিয়ে নিতে পারেন পার্টিশনের সামনের দিকটায়।

পার্টিশনটা কোন ঘরের জন্য বা কোন উদ্দেশ্যে ব্যবহার করা হচ্ছে প্রথমেই এই বিষয়টি ঠিক করে নিতে হবে। ফ্যামিলি লিভিং রুমের পাশে যদি সন্তানের পড়ার রুম থাকে সেক্ষেত্রে একটা পার্টিশনের প্রয়োজন পড়ে। আর সেজন্য একটা  পার্টিশনের প্রয়োজন হয়। এ ক্ষেত্রে একটু ভারী বুননের পার্টিশন দেয়াই ভালো। পার্টিশনটি হবে ফোল্ডিং। এতে করে প্রয়োজন না থাকলে পার্টিশনটি ভাঁজ করে রাখা যাবে।

একটু আড়াল হলেই হয়, তার মানে পুরোপুরি ঢেকে দেয়া নয়। এমন জায়গা হলো ড্রয়িং রুম আর ডাইনিং রুমের মাঝের জায়গাটা। এখানে চাই সৌন্দর্যের ষোলআনা। আর দুটোই ঠিক ঠিক ধরে রাখার জন্য আপনি অনায়াশে বেছে নিতে পারেন পাট, শামুক, ঝিনুক, সিরামিক কিংবা পুঁতি দিয়ে তৈরি দেয়াল। এতে বাঙালিয়ানাও ফুটে উঠবে। আর সেটাতো আমাদের আভিজাত্যও, তাই না!
আর যদি এমন হয়, কাজের প্রয়োজনে মাঝে-মধ্যেই আপনার বাসায় অপরিচিত লোক আসে তাহলে স্লাইডিং পার্টিশন দিন। সেটা হতে পারে কাঠের।

ঘরের অপ্রয়োজীয় জিনিসটা আড়াল করার প্রয়োজন হয়। আর সেজন্য বড় বারান্দার মাঝে খানিকটা আড়াল করে অপ্রয়োজনীয় জিনিস রাখতে পারেন। বারান্দায় প্লাস্টিকের পার্টিশন দিয়ে দিতে পারেন।
রান্নাঘর ও খাবার ঘরের মাঝে ভারি বুননের পার্টিশন দেবেন না। এতে রান্নার ধোয়া আটকে পড়ে অস্বস্তিকর পরিবেশের সৃষ্টি হবে। এক্ষেত্রে হালকা ধরণের পার্টিশন দিন যা প্রয়োজনমতো গুটিয়ে ফেলা যাবে।

পার্টিশনের খোঁজে
রাজধানীর বিভিন্ন শো-রুমগুলোতে পাওয়া যায় বাহারি পার্টিশন। স্বতন্ত্র পার্টিশনের খোঁজে যেতে পারেন আড়ং বা যাত্রার শো-রুমে। এছাড়াও বেশ কিছু ফ্যাশন হাউসে কিনতে পাওয়া যাবে এই অস্থায়ী নান্দনিক দেয়াল। আর বেতের পার্টিশন খুঁজতে যেতে হবে পান্থপথের বেতের দোকানে অথবা মহাখালীর আমতলীতে।

এক নজরে দরদাম জেনে নিন
কাঠের পার্টিশন কেনা যাবে ১২হাজার টাকায়। বেতের পার্টিশন কিনতে কমপক্ষে খরচ হবে ২০০০-২৫০০টাকা। কাচের পার্টিশন কিনতে পারবেন ৩০০০ টাকায়। বাশেঁর পার্টিশন কেনা যাবে ১২০০ থেকে ২০০০টাকায়। আর পাট এবং পুতির পার্টিশন কিনতে লাগবে কমপক্ষে ২০০০টাকা।

মানবকণ্ঠ/আরএস








অ্যাপস ও ফিড
সামাজিক নেটওয়ার্ক
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আনিস আলমগীর
প্রকাশক : জাকারিয়া চৌধুরী
রোড -১৩৮, প্লট - ১/এ, গুলশান-১, ঢাকা-১২১২
ফোনঃ +৮৮-০২-৫৫০৪৪৯৪৩-৫, ফ্যাক্সঃ +৮৮-০২-৫৫০৪৪৯৪৮
ই-মেইল : info@manobkantha.com, mkonlinedesk@gmail.com
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । মানবকণ্ঠে প্রকাশিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র ও অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি।
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আনিস আলমগীর, প্রকাশক : জাকারিয়া চৌধুরী
রোড -১৩৮, প্লট - ১/এ, গুলশান-১, ঢাকা-১২১২ ফোনঃ +৮৮-০২-৫৫০৪৪৯৪৩-৫, ফ্যাক্সঃ +৮৮-০২-৫৫০৪৪৯৪৮
ই-মেইল : info@manobkantha.com, mkonlinedesk@gmail.com