শিরোনাম :
পুরনো প্রেমিককে ভুলতে পারছেন না, তাহলে....
স্বরলিপি
Published : Sunday, 8 January, 2017 at 10:45 AM, Update: 09.01.2017 4:54:58 PM
পুরনো প্রেমিককে ভুলতে পারছেন না, তাহলে....চাইলেই সবকিছু টিকিয়ে রাখা যায় না। আবার ভেঙ্গে গেলেও শেষ হয়ে যায় না।  বাধা বিপত্তি তোয়াক্কা না করে মনে পড়ে বার বার। কখনো কখনো মুখোমুখী দেখা হযে যায় ছেড়ে যাওয়া মানুষটির সঙ্গে। আর সামনে আসা মানে হলো একটা সময়কে নিয়ে আসা একটা সত্যের মুখোমুখী হওয়া। এটা আরো কঠিন হয়, যদি সেটা প্রেমের সম্পর্ক হয়।

নিজেকে প্রশ্ন করুন 'ভুলতে পেরেছেন'?
সম্পর্ক চুকে গেছে আরো আগেই কিন্তু সোশ্যাল মিডিয়ায় যোগাযোগ এখনো আছে। বা একটু সময় নিয়ে সাবেক প্রেমিকের নতুন কোনো ছবিতে লাইক দিতে ইচ্ছে করে। বা লাইক দেন। খুঁজে খুঁজে তার নতুন আর পুরোনো ছবি মনোযোগ দিয়ে দেখতে ইচ্ছে করে। আর সুযোগ পেলে সেটাই করেন। তাহলে নিশ্চিত হতে পারেন এখনো আপনার মনে সে পাকাপোক্ত জায়গা করে আছে।

আবার ধরা যাক, নিজের সংগ্রহে যা কিছু প্রিয় জিনিস আছে সেগুলো নেড়েচেড়ে দেখার অভ্যাস রয়ে গেছে। সাবেক প্রেমিকের দেয়া কিছু প্রিয় জিনিস বা চিঠি, কলম, চুড়ি এখনো যদি সংগ্রহে থাকে, তার মানে আপনি তার স্মৃতি-তার অস্তিত্ব বয়ে বেড়াচ্ছেন।
প্রেমের পাঠ শেষ হবার পর আবার নতুন করে বন্ধুত্ব পাতা মানে হলো কেউ কাউকে ছাড়তে চাইছেন না।  

এই যখন অবস্থা তখন মনের মানুষটির সঙ্গে যদি দেখা হয়ে যায় তো....

অতীত আর বর্তমানের মধ্যে স্বচ্ছতা ও সমতা আনার চেষ্টা করবেন। হয়তো সম্পর্কটা বেশ তিক্তভাবে শেষ হয়েছিলো তাইবলে আক্রমনাত্মক হবার কিছু নেই। নিজের আত্মসম্মান বজায় রেখে কথা বলা ভালো। যতটা সম্ভব বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক বজায় রেখে স্বাভাবিকভাবে কথা বলার চেষ্টা করুন।

স্বাভাবিক স্বরেই জিজ্ঞাসা করতো পারেন 'কেমন আছো'। আর সে যদি বিয়ে করে থাকে তাহলে 'তোমার স্ত্রী কেমন আছে', 'বাসার সবাই কেমন আছে' এগুলো জানতো চাইতে পারেন।
এক কথায় প্রশ্নের কেন্দ্রে সাবেক প্রেমিককে না রেখে তার সঙ্গে যারা জড়িত তাদের কথা বেশি বেশি বলেন। এতে পরিস্থিতি ঘোলাটে হবে না।
 
এক সময় যাকে কেন্দ্রকরে অনেক স্বপ্নের জাল বুনেছেন, তা হতাশায় ছিঁড়ে গেছে। এবার, কি করবেন আপনি। সেই মানুষটি যখন মুখোমুখি দেখা হলে জানতে চাইবে 'কেমন আছো'? তার আগে এটুকুতো মানেন, অনেক কিছু পাওয়ার আগে হারিয়ে যায়। সেও তাই হয়েছে।
তবে একটা সময় তোমার স্মৃতিতে আছে- যে সময়টা মধুর। আর যে দিনগুলোতে দুজন কাছাকাছি ছিলেন। তাহলে সেই দিনগুলো মনে রেখেই আজ নিজেকে বিষন্নতা থেকে মুক্তি দিন আর তার প্রশ্নের উত্তর দিন স্বাভাবিকভাবেই।

বর্তমান সম্পর্ককে আগে গুরুত্ব দিন
দ্য ওহিও স্টেট ইউনিভার্সিটি'র অধ্যাপক ডক্টর জেসি ফক্স-এর মতামত হলো, সম্পর্ক ভেঙে যাওয়ার পরেও যারা সাবেক প্রেমিক-প্রেমিকার উপর নজরদারি চালায়, তারা জীবনে বেশি দুঃখ পায়। এক সমীক্ষার ফলাফল দেখিয়ে তিনি প্রমাণ করেন যে, আপনি আপনার সাবেকের উপর নজর রাখার কাজে ফেসবুককে ব্যবহার করলেও এতে মন খারাপ হয় আপনারই। এতে শুধু আপনার ক্ষতি হয় এমনটা নয়, ক্ষতির প্রভাব পড়ে আপনার আগামী সম্পর্কের ওপরেও।

আর  যদি আগে সম্পর্ক প্রাথমিক পর্যায়ে থেকে থাকে তাহলে সেটা বন্ধুত্বের পর্যায়ে টিকিয়ে রাখা যেতে পারে। এজন্য নিজের কনফিডেন্ট থাকা জরুরি যে, এই সম্পর্ক অন্যদিকে মোড় নেবে না।
সাবেক প্রেমিকের সঙ্গে যদি কোন রকম যোগাযোগ হয়, বর্তমান পার্টনারকে সেটা জানাতে হবে। তা নাহলে একটা সাধারণ বিষয়ও সংসারে ভাঙ্গন ধরাতে পারে।
তবে একটা সম্পর্ক যখন ভেঙ্গে যায়, তখন বাস্তবতা মাথায় রেখে দুজনের মধ্যে কথা বলে নেয়া ভালো। তাহলে সত্যটা সামনে চলে আসে।

মানবকণ্ঠ/আরএস


 





অ্যাপস ও ফিড
সামাজিক নেটওয়ার্ক
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আনিস আলমগীর
প্রকাশক : জাকারিয়া চৌধুরী
রোড -১৩৮, প্লট - ১/এ, গুলশান-১, ঢাকা-১২১২
ফোনঃ +৮৮-০২-৫৫০৪৪৯৪৩-৫, ফ্যাক্সঃ +৮৮-০২-৫৫০৪৪৯৪৮
ই-মেইল : info@manobkantha.com, mkonlinedesk@gmail.com
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । মানবকণ্ঠে প্রকাশিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র ও অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি।
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আনিস আলমগীর, প্রকাশক : জাকারিয়া চৌধুরী
রোড -১৩৮, প্লট - ১/এ, গুলশান-১, ঢাকা-১২১২ ফোনঃ +৮৮-০২-৫৫০৪৪৯৪৩-৫, ফ্যাক্সঃ +৮৮-০২-৫৫০৪৪৯৪৮
ই-মেইল : info@manobkantha.com, mkonlinedesk@gmail.com