শিরোনাম :
বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির নির্বাচন নিয়ে সংঘর্ষ
কুমিল্লা প্রতিনিধি
Published : Saturday, 7 January, 2017 at 8:11 PM
বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির নির্বাচন নিয়ে সংঘর্ষকুমিল্লার দেবিদ্বার উপজেলার বড় শালঘর ইউএমএ উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির নির্বাচনকে কেন্দ্র করে দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ, ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া, বাড়ি-ঘর ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা-ভাঙচুরের ঘটনা ঘটেছে।
শনিবার সকাল থেকে শুরু হওয়া সংঘর্ষ চলে দুপুর পর্যন্ত। দফায় দফায় চলা ওই সংঘর্ষে অনন্ত ১৫ জন আহত হয়েছে।
স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান জহিরুল ইসলাম ঝাড়ু এবং আওয়ামী লীগ নেতা ইউনুছ মিয়া মাস্টারের গ্রুপের মধ্যে এ সংঘর্ষ হয়েছে। এ ঘটনায় নির্বাচন স্থগিত করা হয়েছে। এদিকে ওই ঘটনার পর ফের সংঘর্ষের আশঙ্কায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রাখা হয়েছে। সন্ধ্যায় এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত ওই এলাকায় থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছিল।
পুলিশ, স্থানীয় সূত্র ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, দেবিদ্বার উপজেলার বড়শালঘর ইউ.এম.এ উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির নির্বাচন ছিল শনিবার। এ নির্বাচনে ৫টি পদের বিপরীতে স্থানীয় চেয়ারম্যান জহিরুল ইসলাম ও কামাল চৌধুরী এবং ইউনুছ মাস্টার ও আউয়াল সমর্থিত দুটি প্যানেল অংশগ্রহণ করে। নির্বাচনকে কেন্দ্র করে সকাল থেকে ভোট কেন্দ্রে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে চেয়ারম্যান জহিরুল ইসলাম ও ইউনুছ মাস্টার গ্রুপের মধ্যে উত্তেজনাকর পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়। এক পর্যায়ে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান জহিরুল ইসলামের সমর্থকরা বিদ্যালয়ের পাশের সৈয়দপুর বাজারে ইউনুছ মাস্টার গ্রুপের এক সমর্থকের উপর হামলা, দুইটি দোকান ও একটি মোটরসাইকেল ভাঙচুর করে। এ নিয়ে পরে উভয় গ্রুপের সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। সংঘর্ষে আওয়ামী লীগ নেতা ইউনুছ মাস্টার গ্রুপের মান্নান, সাব্বির হোসেন, এনামুল, আবদুল মতিন ও সিরাজুল ইসলাম গুরুতর আহত হয়। খবর পেয়ে দুপুরে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) আনোয়ার উল হালিম, দেবিদ্বার-বিপাড়া সার্কেলের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার শেখ মো. সেলিম ও থানার ওসি মো. মিজানুর রহমান অতিরিক্ত পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন। এ সময় পুলিশ কয়েক রাউন্ড ফাঁকা গুলি চালায়। এ বিষয়ে জহিরুল ইসলাম জারু চেয়ারম্যানের সমর্থকরা জানান,  ইউনুছ মাস্টারের সমর্থকরা জারু চেয়ারম্যানের দুই সমর্থক হাজী মোহাম্মদ শাহাদাত হোসেন ও ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি মুনসুরুল ইসলামের বাড়ি ও দোকানে হামলা চালিয়ে ব্যাপক ভাঙচুর ও লুটপাট করেছে।
বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. আলমগীর হোসেন জানান, সংঘর্ষের পর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার সাথে পরামর্শক্রমে নির্বাচন স্থগিত করা হয়েছে।
দেবিদ্বার থানার ওসি মো. মিজানুর রহমান জানান, নির্বাচনকে কেন্দ্র করে দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। ফের সংঘর্ষের আশংকায় ঘটনাস্থলসহ আশপাশের এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রাখা হয়েছে।

মানবকণ্ঠ/এনআই






অ্যাপস ও ফিড
সামাজিক নেটওয়ার্ক
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আনিস আলমগীর
প্রকাশক : জাকারিয়া চৌধুরী
রোড -১৩৮, প্লট - ১/এ, গুলশান-১, ঢাকা-১২১২
ফোনঃ +৮৮-০২-৫৫০৪৪৯৪৩-৫, ফ্যাক্সঃ +৮৮-০২-৫৫০৪৪৯৪৮
ই-মেইল : info@manobkantha.com, mkonlinedesk@gmail.com
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । মানবকণ্ঠে প্রকাশিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র ও অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি।
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আনিস আলমগীর, প্রকাশক : জাকারিয়া চৌধুরী
রোড -১৩৮, প্লট - ১/এ, গুলশান-১, ঢাকা-১২১২ ফোনঃ +৮৮-০২-৫৫০৪৪৯৪৩-৫, ফ্যাক্সঃ +৮৮-০২-৫৫০৪৪৯৪৮
ই-মেইল : info@manobkantha.com, mkonlinedesk@gmail.com