সরকার জঙ্গিবাদকে পৃষ্ঠপোষকতা করছে: রিজভী

সরকার জোর করে ক্ষমতায় থাকার জন্য জঙ্গিবাদকে সামনে নিয়ে এসে পৃষ্ঠপোষকতা করছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

জঙ্গিবাদ নিয়ে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর ভেতরে সমন্বয়হীনতা রয়েছে বলেও দাবি করেন বিএনপির এই নেতা।
রোববার নয়াপল্টন কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এমন অভিযোগ করে রিজভী আহমেদ বলেন,জঙ্গিবাদ নিয়ে আইজিপি বক্তব্যের সঙ্গে র‌্যাবের ডিজির বক্তব্যের কোনো মিল নাই। জঙ্গিবাদ দমনের ক্ষেত্রে সমন্বয়হীনতার একটা বিষয় চলছে। একটা ঘটনা ঘটার সঙ্গে সঙ্গে অন্য দলের ওপর তারা দোষ চাপিয়ে দিচ্ছে। তাতে স্পষ্ট মনে হয় যে, এই ঘটনাগুলোর সঙ্গে, এই উগ্রবাদেরই সঙ্গে সরকারেরই একটা সম্পর্ক আছে। তাদের যে গোপন এজেন্ডা, সেটিকে তারা বাস্তবায়ন করার জন্য জোর করে ক্ষমতায় থাকতে চায়। তারা নির্বাচন চায় না। ভোটাদের ভোটকেন্দ্রে যেতে দিতে চায় না। কারণ ভোট কেন্দ্রে মানুষকে আসতে দিলে তারা হেরে যাবে। এই আশঙ্কা থেকে উগ্রবাদ-জঙ্গিবাদের সাইনবোর্ডকে সামনে নিয়ে এসেছে এবং এটাকে পৃষ্টপোষকতা করছে।
সম্প্রতি চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে জঙ্গী আস্থানায় অভিযান এবং আশকোনা ও খিলঁগাওয়ে র‌্যাবের ওপর আত্মঘাতী হামলার ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করেন রিজভী।
ভুল তথ্য দিয়ে একটি মহল বিচার বিভাগের সঙ্গে নির্বাহী বিভাগের দূরত্ব তৈরি করছে প্রধান বিচারপতির এমন বক্তব্যেকে যৌক্তিক আখ্যায়িত করে রিজভী আহমেদ বলেন, প্রধান বিচারপতির এই বক্তব্যের সঙ্গে দ্বিমত পোষণ করতে পারছি না। আমার মনে হয়, এদেশের মানুষ দুর্ভোগ পোহাচ্ছে, আজকে রাষ্ট্র শক্তি যেভাবে ভয়ঙ্কর হয়ে উঠেছে, এখানে শেষ আশ্রয়স্থল আদালত। প্রধান বিচারপতির অভিযোগের বিষয়টি এখন সর্বমহলে আলোচিত হচ্ছে। দেশের প্রধান বিচারপতি যখন এই ধরণের অভিযোগ উত্থাপন করেন, তখন তা জনমনে যৌক্তিক ভিত্তি পায়। কী পরিমাণ ভুক্তভোগী হলে স্বয়ং প্রধান বিচারপতিও ক্ষুব্ধ হয়ে নির্বাহী হস্তক্ষেপের বিষয়ে অভিযোগ তুলেন।
আওয়ামী লীগের মন্ত্রী-নেতাদের বক্তব্য, বিবৃতিতে অহমিকা প্রকাশ পায় অভিযোগ করে রিজভী আহমেদ আরো বলেন, তারা রাষ্ট্রের অন্য কোনো স্বাধীন অঙ্গের অস্তিত্ব স্বীকার করে না। একদলীয় শাসনব্যবস্থা আনুষ্ঠানিক রূপ লাভ করেছে বলেই আজকে বিচার বিভাগের ওপর সরকারের হস্তক্ষেপ সবর্ত্র দৃশ্যমান।
এসময় বিএনপি ভাইস চেয়ারম্যান ডা. এজেডএম জাহিদ হোসেন, চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা আতাউর রহমান ঢালী, কেন্দ্রীয় নেতা আবদুল কালাম আজাদ সিদ্দিকী ও সহ-দফতর তাইফুল ইসলাম টিপু উপস্থিত ছিলেন।

মানবকণ্ঠ/এমআই/এফএইচ

Leave a Reply

Your email address will not be published.